সেরা হওয়ার লক্ষ্যে মাঠে নামছে বাংলাদেশের মেয়েরা

সেরা হওয়ার লক্ষ্যে মাঠে নামছে বাংলাদেশের মেয়েরা

আগামীকাল বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে শুরু হচ্ছে বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ নারী আন্তর্জাতিক গোল্ড কাপ ফুটবল। বঙ্গমাতা বেগম শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের নামের এই টুর্নামেন্টটা স্মরণীয় করে রাখতে চায় বাংলাদেশের মেয়েরা। চ্যাম্পিয়ন হওয়াই একমাত্র স্বপ্ন মৌসুমী-কৃষ্ণাদের। চেনা মাঠে, চেনা দর্শকের সামনে খেলা। গ্রুপ পর্বে পাওয়া দুই প্রতিপক্ষকেও বয়সভিত্তিকের অন্য পর্যায়ে বড় ব্যবধানে হারানোর অভিজ্ঞতা আছে মেয়েদের।

বঙ্গমাতা অনূর্ধ্ব-১৯ আন্তর্জাতিক গোল্ড কাপে বাংলাদেশ অন্যতম ফেভারিট। কোচ গোলাম রব্বানী ছোটনও আত্মবিশ্বাসী কণ্ঠে দিচ্ছেন টুর্নামেন্টটি স্মরণীয় করে রাখার প্রতিশ্রুতি।

গেল ক’বছরে বয়সভিত্তিক ফুটবলে একের পর এক সাফল্যের গল্প লিখেছে বাংলাদেশ। এএফসি অনূর্ধ্ব-১৪ আঞ্চলিক ফুটবলে টানা দুইবারের চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ।

এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ ফুটবলে টানা দ্বিতীয়বারের মতো সেরা আটে খেলবে মারিয়া-তহুরারা। সাফে অনূর্ধ্ব-১৫ পর্যায়ে একবার চ্যাম্পিয়ন ও রানার্সআপ হয়েছে মেয়েরা। গেল বছর প্রথম অনূর্ধ্ব-১৮ সাফেও চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ। বলতে গেলে সেই অনূর্ধ্ব-১৮ দলটিই এবারের টুর্নামেন্টে খেলবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাতার নামানুসারে প্রথমবারের মতো হওয়া এই প্রতিযোগিতার বাকি পাঁচ দল মঙ্গোলিয়া, তাজিকিস্তান, কিরগিজস্তান, লাওস ও সংযুক্ত আরব আমিরাত। ‘এ’ গ্রুপের তিন দলের মধ্যে মঙ্গোলিয়া ও তাজিকিস্তান এরই মধ্যে চলে এসেছে ঢাকায়। লাওস দল আজ আসবে। ‘বি’ গ্রুপের দল আরব আমিরাত চলে এসেছে।

কিরগিজস্তান দলও আজ আসবে বলে গতকাল সংবাদ সম্মেলনে জানান বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম সোহাগ। আরব আমিরাতের বিপক্ষে ম্যাচ দিয়ে গ্রুপ পর্ব শুরু করবে বাংলাদেশ। এএফসি অনূর্ধ্ব-১৬ চ্যাম্পিয়নশিপের বাছাইয়ে তাদের তিনবার হারানোর অভিজ্ঞতা আছে বাংলাদেশের। সর্বশেষ ২০১৮ সালে দল জিতেছিল ৭-০ ব্যবধানে। একই আসরে কিরগিজস্তানকে মেয়েরা উড়িয়ে দিয়েছিল ১০-০ গোলে।

গত মার্চে নেপালে সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ খেলে আসা খেলোয়াড়দের মধ্যে বয়সের কারণে কেবল সাবিনা খাতুন নেই ২০ জনের দলে। সাফ শেষে সাত দিনের বিশ্রামের পর মেয়েরা অনুশীলনের মধ্যে থাকায় আশাবাদী রব্বানী। টুর্নামেন্ট প্রস্তুতি নিয়ে নারী ফুটবল দলের সফল এই কোচ বলেন, মেয়েরা ধারাবাহিকভাবে অনুশীলনের মধ্যেই আছে। ২৭শে ফেরুয়ারি থেকে ২০শে মার্চের মধ্যে আমরা দুটি আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্টে (অলিম্পিক বাছাই ও সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ) অংশ নিয়েছি। সেই অভিজ্ঞতা এই টুর্নামেন্টে অনেক কাজে আসবে। সেখানে আমাদের যে ভুলত্রুটিগুলো ছিল, সেগুলো নিয়ে কাজ করা হয়েছে।

ফাইনাল খেলার প্রত্যাশার কথা জানিয়ে ছোটন বলেন, আমরা প্রথমত গ্রুপের ম্যাচগুলোতে জিততে চাই। এরপর সেমি-ফাইনাল জিতে ফাইনালে খেলতে চাই। টুর্নামেন্টকে স্মরণীয় করে রাখতে ঘরের ট্রফি ঘরেই রাখতে চাই আমরা। এ লক্ষ্যে আমরা প্রতি ম্যাচেই জয়ের জন্য মাঠে নামবো। প্রথম ম্যাচটি অবশ্যই জয় দিয়ে শুরু করতে চাই। মাঠে খেলার ধরন দেখে কৌশল নির্ধারণ করবো। মেয়েরা জয়ের জন্য প্রস্তুত আছে। কোচের সুরে সুর মিলিয়েছেন অধিনায়ক মিশরাত জাহান মৌসুমী, ‘প্রধানমন্ত্রীর মায়ের নামে টুর্নামেন্ট। সেটি স্মরণীয় করে রাখতে আমরা সর্বোচ্চটা দিবো। আমাদের ভালো প্রস্তুতি হয়েছে। দলের সবাই সুস্থ আছে। নিজেদের ঘরে ট্রফি ধরে রাখতে চাই আমরা।

বাংলাদেশ দল

রুপনা চাকমা (গোলরক্ষক), মাহমুদা আক্তার, মাসুরা পারভিন, নার্গিস খাতুন,আঁখি খাতুন, শিউলি আজিম, মিসরাত জাহান মৌসুমী, শামসুন্নাহার, নিলুফার নিলা, নাজমা আক্তার, মারিয়া মান্ডা, মনিকা চাকমা, রত্না, মার্জিয়া, রাজিয়া খাতুন , সানজিদা আক্তার, সিরাত জাহান স্বপ্না, কৃষ্ণা রাণী সরকার, শামসুন্নাহার, সাজেদা খাতুন, তহুরা খাতুন ও মোসাম্মৎ সুলতানা।

*রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন*
সম্পর্কিত সংবাদ
Leave a reply
ডেস্ক রিপোর্ট