সৌদির কাছে ক্ষমা চাওয়া হবে না : জাস্টিন ট্রুডো

সৌদির কাছে ক্ষমা চাওয়া হবে না : জাস্টিন ট্রুডো

সৌদি আরবে মানবাধিকারকর্মীদের মুক্তির আহ্বানের জন্য ক্ষমা না চাওয়ার ঘোষণা দিয়েছে কানাডা। দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো গত বুধবার এ ঘোষণা দেন। অন্যদিকে অটোয়ার বিরুদ্ধে আরো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ভাবছে রিয়াদ।

গত সোমবার থেকে দেশ দুটির মধ্যে চরম উত্তেজনা চলছে। সৌদি আরবে গ্রেপ্তার মানবাধিকারকর্মীদের অবিলম্বে মুক্তি দিতে গত সপ্তাহে আহ্বান জানায় কানাডা।

একে ‘অভ্যন্তরীণ হস্তক্ষেপ’ অ্যাখ্যা দিয়ে কানাডার রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার এবং কানাডা থেকে নিজেদের রাষ্ট্রদূতকে প্রত্যাহার করে নেয় রিয়াদ। একই সঙ্গে কানাডার সঙ্গে সব ধরনের বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন করা হয়।

এ ছাড়া কানাডায় অধ্যয়নরত সৌদি ছাত্র-ছাত্রীদের বৃত্তি বাতিল করে অন্যান্য দেশে তাদের ক্রেডিট ট্রান্সফারের ঘোষণা দেয় রিয়াদ। এরই মধ্যে সৌদির রাষ্ট্রীয় বিমান সংস্থা সৌদিয়া টরন্টোর সঙ্গে সব ফ্লাইট বাতিল করেছে।

গত বুধবার নিজেদের অবস্থানে অনড় থাকার কথা জানালেন ট্রুডো। তিনি বলেন, মানবাধিকারের প্রশ্নে কানাডা সব সময়ই দৃঢ় ও সুস্পষ্ট ভাষায় কথা বলে। তবে সৌদির সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি আমরা চাই না। অটোয়া মনে করে, রিয়াদ ‘মানবাধিকার পরিস্থিতি’ উন্নতি করেছে।

ট্রুডো জানান, সংকট নিরসনে গত মঙ্গলবার কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রিশ্চিয়া ফ্রিল্যান্ড ও সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল-জুবেইরের ‘দীর্ঘ আলোচনা’ করেছে। দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক আলোচনা অব্যাহত থাকবে।

সৌদির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের খবর, কানাডায় সৌদি নাগরিকদের সব ধরনের চিকিৎসাসেবা গ্রহণের সুযোগ বন্ধ করেছে রিয়াদ। পাশাপাশি কানাডায় চিকিৎসাধীন সৌদি রোগীদের অন্যান্য দেশে স্থানান্তরের পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ফিন্যানশিয়াল টাইমস জানিয়েছে, কানাডার সঙ্গে সব ধরনের বৈদেশিক ব্যাংকিং কার্যক্রম বন্ধে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছে সৌদির কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

এদিকে গ্রেপ্তার মানবাধিকারকর্মীদের বিষয়ে মঙ্গলবার গণমাধ্যমের কাছে সৌদি পররাষ্ট্রমন্ত্রী আদেল আল-জুবেইর তাঁর সরকারের দৃষ্টিভঙ্গি পুনর্ব্যক্ত করেছেন। তিনি বলেন, ‘গ্রেপ্তারকৃতদের সঙ্গে বিদেশি সংস্থার যোগাযোগ ছিল।’ তবে তিনি সুনির্দিষ্ট অভিযোগের কথা বলেননি।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট