স্বামীর জন্য নির্বাচনী মাঠে শাবানা

স্বামীর জন্য নির্বাচনী মাঠে শাবানা
মাত্র নয় বছর বয়সে চলচ্চিত্রে অভিনয় শুরু করেছিলেন কিংবদন্তি অভিনেত্রী শাবানা। দাপটের সাথে প্রাণবন্ত অভিনয় চালিয়ে গেছেন দীর্ঘসময়। প্রায় দেড়যুগ ধরে অভিনয় থেকে দূরে সরে আছেন চলচ্চিত্রের গুণী অভিনয়শিল্পী শাবানা। দীর্ঘদিন চলচ্চিত্র থেকে দূরে থাকলেও দর্শকের মন এবং চলচ্চিত্রের মানুষের খুব কাছে আছেন তিনি।
চলচ্চিত্রের মাঠে না থাকলেও এবার নন্দিত এই অভিনেত্রী নেমেছেন রাজনীতির মাঠে। সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শাবানাকে আওয়ামী লীগে যোগদানের আহ্বান জানিয়েছিলেন। সেই সুবাদে নির্বাচনি প্রচারণায় নামলেন জনপ্রিয় অভিনেত্রী শাবানা। তবে নিজের জন্য নয়, স্বামী ওয়াহিদ সাদিকের জন্যই রাজনীতির মাঠে শাবানার আবির্ভাব।
প্রধানমন্ত্রীর আহ্বানে শাবানার স্বামী চলচ্চিত্র প্রযোজক ওয়াহিদ সাদিক আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে যশোর-৬ (কেশবপুর) আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ওয়াহিদ সাদিকের বড় ভাই এ এইচ এস কে সাদেক এক সময় এই আসনের সংসদ সদস্য ছিলেন। ১৯৯৬ সালের শেখ হাসিনার সরকারে শিক্ষামন্ত্রীও ছিলেন তিনি।
এই আসনে প্রচার শুরুর আগে গতকাল ১৮ জুলাই মঙ্গলবার কেশবপুর উপজেলার বড়েঙ্গা গ্রামের পৈত্রিক বাড়িতে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন শাবানা-ওয়াহিদ।
এ সময় শাবানা বলেন, “সন্তানদের সময় দিতে হয় বলে আমি রাজনীতিতে আসতে পারছি না। তবে আমার স্বামী রাজনীতিতে আসতে চান। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাকেও রাজনীতিতে আসার কথা বলেন। আমার স্বামী ওয়াহিদ সাদিক এই এলাকা থেকে আগামী সংসদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে জয়ী হলে এলাকার সর্বস্তরের মানুষের কল্যাণে কাজ করবেন। আমিও চাই তার সাথে মানুষের দুঃখ-দুর্দশা লাঘবে কাজ করতে।’’
এ সময় ওয়াহিদ সাদিক তার জন্মভূমি যশোর-৬ (কেশবপুর) সংসদীয় আসন থেকে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচনের আগ্রহ প্রকাশ করেন।
মঙ্গলবার (১৮ জুলাই) সপরিবারে যশোরের কেশবপুরে একটি অনুষ্ঠানে অংশ নেন শাবানা। উপজেলার বড়েঙ্গা গ্রামে তাদের উদ্যোগে শিশুদের বিনামূল্যে কোরআন শিক্ষা কার্যক্রমের আয়োজন করা হয়। ধর্মমন্ত্রী আলহাজ অধ্যক্ষ মতিউর রহমান এ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। ধর্মমন্ত্রী বড়েঙ্গা উত্তরপাড়া জামে মসজিদের জন্য ২ লাখ টাকা ও কোরআন শিক্ষা কার্যক্রমের জন্য ১ লাখ টাকা সরকারি অনুদানের ঘোষণা দেন।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর, ময়মনসিংহ জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ইউসুফ খান পাঠান ও ময়মনসিংহ জেলার স্বেচ্ছাসেবক লীগের ত্রাণবিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম শফিক।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট