স্লেজিংয়ের প্রতিবাদে  মাঠ ছাড়তে বাধ্য হলেন ওয়ার্নার

স্লেজিংয়ের প্রতিবাদে  মাঠ ছাড়তে বাধ্য হলেন ওয়ার্নার

সমালোচনা যেন পিছু ছাড়ছে না ডেভিড ওয়ার্নারের। বল টেম্পারিং এর অভিযোগে আন্তর্জাতিক এবং জাতীয় পর্যায়ের ক্রিকেট থেকে নিষিদ্ধ হওয়া অস্ট্রেলিয়ার সাবেক এই অধিনায়ক বাধিয়েছেন আরেক কেলেংকারি। স্লেজিং করার কারণে প্রতিপক্ষ শিবিরের সমর্থকদের বিক্ষোভে ক্লাব পর্যায়ের এক খেলা থেকে মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন ওয়ার্নার।

র‍্যান্ডউইকে পেটারসামের হয়ে ওয়েস্টার্ন সাবরাবসের বিপক্ষে ব্যাট করছিলেন ডেভিড ওয়ার্নার। এমন সময় ওয়ার্নার প্রতিপক্ষের খেলোয়াড়ের প্রতি স্লেজিং করেছেন বলে গ্যালারি থেকে হট্টগোল বাধিয়ে দেয় দর্শকদের একাংশ। আর এতেই তাকে মাঠ থেকে চলে আসতে বলে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট সংস্থা।

তবে এই কিছু সময় পর সংস্থাটি বুঝতে পারে যে, স্লেজিং মূলত ওয়ার্নার করেননি বরং করেছেন তারই ক্লাব সতীর্থ জ্যাসন হিউজ। মাঠ ত্যাগের কিছু সময় পর অবশ্য ওয়ার্নারকে আবার মাঠে ফিরিয়ে আনেন প্রতিপক্ষ দল। অপরাজিত ৩৫ রানে মাঠ ছাড়া ওয়ার্নার পুনরায় ব্যাটিং এ নেমে শেষ পর্যন্ত করেন ১৩৫ রান।

এদিকে জ্যাসন ঠিক কী ধরনের স্লেজিং করেছেন সে বিষয়ে বিস্তারিত কিছু বলেনি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া। তবে প্রতিপক্ষের এক খেলোয়াড়ের প্রতি ‘ব্যক্তিগত আক্রমণ’ এবং ‘ন্যাক্কারজনক’ মন্তব্য করেছেন বলে এক বিবৃতিতে বলে সংস্থাটি।

প্রসঙ্গত, ২০১৩ সালে ইংলিশ ব্যাটসম্যান জনাথন ট্রটকে ‘গরীব ও দুর্বল’ বলেছিলেন ওয়ার্নার। ২০১৫ সালে ভারতের বর্তমান অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে ‘ইংরেজি’তে কথা বলতে বলে সমালোচনার শিকার হয়েছিলেন তিনি।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট