হত্যাকাণ্ডে জড়িত বিএসএফ জওয়ানদের বিচার হবে

হত্যাকাণ্ডে জড়িত বিএসএফ জওয়ানদের বিচার হবে

চুয়াডাঙ্গা সীমান্তে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষীবাহিনী বিএসএফের গুলিতে এক বাংলাদেশি নিহতের ঘটনায় জড়িতদের বিচারের সম্মুখীন হতে হবে বলে জানিয়েছেন বিএসএফ প্রধান কে কে শর্মা। সোমবার বিজিবি-বিএসএফের মধ্যকার ৫ দিনের সীমান্ত সম্মেলন শেষে পিলখানায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএসএফ প্রধান এ কথা জানান।

তিনি জানান, চুয়াডাঙ্গায় ঘটে যাওয়া হত্যাকাণ্ডটি দুঃখজনক। এ ঘটনায় জড়িত দুই জনকে ইতোমধ্যেই বরখাস্ত করা হয়েছে। এ ছাড়াও জড়িত সবাইকেই বিচারের সম্মুখীন করা হবে।

বিএসএফের গুলিতে এখন পর্যন্ত সীমান্তে ৪৪৭ জন বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন।

এই প্রসঙ্গে কে কে শর্মা জানান, সীমান্তে হত্যাকাণ্ড কমিয়ে আনতে আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহার কমিয়ে আনার বিকল্প নেই। তবে আত্মরক্ষার জন্য বিএসএফের গুলি চালানোর বিকল্প থাকে না বলেও দাবি করেন তিনি।

বিএসএফ প্রধান জানান, চোরাকারবারিরা যখন সীমান্তে হামলা চালায় তখন বিএসএফ-এর আত্মরক্ষায় গুলি চালানো ছাড়া উপায় থাকে না।

সম্মেলনে বিজিবি মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আজিজ আহমেদের নেতৃত্বে ২৩ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল এবং বিএসএফ মহাপরিচালক কে কে শর্মার নেতৃত্বে ২১ সদস্যের ভারতীয় প্রতিনিধিদল অংশগ্রহণ করেন।

বাংলাদেশের প্রতিনিধিদলে বিজিবির আঞ্চলিক কমান্ডার ও অতিরিক্ত মহাপরিচালক, সেক্টর কমান্ডার ও উপ-মহাপরিচালক, বিজিবি সদর দপ্তরের সংশ্লিষ্ট স্টাফ অফিসার ছাড়াও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, যৌথ নদী কমিশন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদ্প্তর, ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তর এবং সার্ভে অব বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা প্রতিনিধিত্ব করেন।

এবারের সম্মেলনের আলোচ্য বিষয়ের মধ্যে ছিলো সীমান্ত এলাকায় নিরস্ত্র বাংলাদেশি নাগরিকদের গুলি, হত্যা, আহত করা, সীমান্তের অপর প্রান্ত থেকে বাংলাদেশে ফেনসিডিল, অ্যালকোহল, গাঁজা, হেরোইনসহ অন্যান্য মাদক ও নেশাজাতীয় দ্রব্যের চোরাচালান বন্ধ, বাংলাদেশি নাগরিকদের আটক, অবৈধভাবে আন্তর্জাতিক সীমান্ত অতিক্রম, অস্ত্র ও বিস্ফোরক পাচার, আন্তর্জাতিক সীমান্তের ১৫০ গজের মধ্যে উন্নয়নমূলক নির্মাণকাজ এবং উভয় দেশের সীমান্তে নদীর তীর সংরক্ষণ কাজে সহায়তা। এ ছাড়া উভয় বাহিনীর মধ্যে পারস্পরিক আস্থা বৃদ্ধির উপায় নিয়েও আলোচনা করা হয়।

আলোচ্য বিষয় গুলোর সমাধান হবে এবং বিএসএফ সদস্য দলের নিরাপদ ভ্রমণ কামনা করে সমাপনী বক্তব্য দেন বিজিবি মহাপরিচালক।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক