২৫ প্রাণ বাঁচানো পারভেজের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির সুপারিশ  

২৫ প্রাণ বাঁচানো পারভেজের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির সুপারিশ  

কুমিল্লার খালে পড়ে দুর্ঘটনা কবলিত বাসের ২৫ যাত্রীদের প্রাণ বাঁচানো সেই পুলিশের এসআই পারভেজকে রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির জন্য সুপারিশ করা হবে। এমনটাই জানিয়েছেন কুমিল্লা হাইওয়ে পুলিশ সুপার পরিতোষ ঘোষ।

তিনি বলেন, পুলিশের কাজ হচ্ছে মানুষের জীবন বাঁচানো। বিপদে জনগণের পাশে দাঁড়ানো। একজন পুলিশ হয়ে তার দায়িত্ব নিষ্ঠার সঙ্গে পালন করেছেন। পারভেজ নিজের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যে ২৫ জনের প্রাণ বাঁচিয়েছেন- এটা আসলে আমাদের পুলিশ বিভাগের জন্য অনেক গর্বের বিষয়।

পুরস্কার দিয়ে কাজের মূল্যায়ন করা কোনোদিন সম্ভব নয়। পারভেজের এ কাজের জন্য আমরা রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির সুপারিশ করবো। রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি পেলে পারভেজ জীবনে আরো কঠিন কাজ দায়িত্ব হিসেবে গ্রহণ করবে আনন্দের সঙ্গে। তাই আমরা এই সদস্যের রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির জন্য সুপারিশ করতে যাচ্ছি।

তবে সিদ্ধান্ত হবে আরো পরে। তবে তাঁর ভূমিকা প্রশংসনীয় এবং তার মতো কর্মীকে পুলিশ মূল্যায়ন করবে।

Comilla 2

শুক্রবারের ঘটনা

মহাসড়কের পাশেই ডোবা। তাতে পচা পানি। গা গুলিয়ে যাওয়া দুর্গন্ধযুক্ত আবর্জনায় পরিপূর্ণ। হঠাৎ একটি বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পড়ে গেল তাতে। চারপাশে হই-হুল্লোড়। চিৎকার চেঁচামেচি। জীবন শঙ্কায় অন্তত অর্ধশত প্রাণ। নিশ্চিত মৃত্যু তাদের। সময় কম। উদ্ধার করতে গেলেই মৃত্যু ঝুঁকি। দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে দেখা ছাড়া কোনো উপায় নেই। অনেকেই এই মর্মান্তিক ঘটনাকে সাক্ষী করতে ভিডিও করছেন। ঠিক এই মুহূর্তে দেবদূত রূপে সেখানে হাজির হলেন পুলিশের এক  কনস্টেবল। একে একে বের করে আনেন শিশুসহ ২৫ জনকে।

শুক্রবার মতলব এক্সপ্রেস পরিবহনের একটি বাস অর্ধশত যাত্রী নিয়ে চাঁদপুরের মতলবে যাচ্ছিল। সকাল ১১টায় ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার দাউদকান্দির গৌরীপুর বাসস্ট্যান্ড এলাকায় এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে রাস্তার পাশে ময়লা পানির খাদে পড়ে যায় বাসটি। এ সময় পাশেই দায়িত্ব পালন করছিলেন হাইওয়ে পুলিশের কনস্টেবল পারভেজ মিয়া।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক