৪০ টাকার নিচে চাল বাস্তবসম্মত নয়: বাণিজ্যমন্ত্রী

৪০ টাকার নিচে চাল বাস্তবসম্মত নয়: বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রতি কেজি চালের দাম ৪০ টাকার নিচে চলে আসা বাস্তবসম্মত হবে না বলে মন্তব্য করেছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।

তিনি বলেন, কৃষকের দিকে খেয়াল রাখতে হবে। চালের দাম তখন কম ছিল, সাংবাদিকেরাও লিখেছেন কৃষক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এজন্য কৃষককে গুরুত্ব দিতে হবে। কৃষক যদি চাল উৎপাদন থেকে আগ্রহ হারিয়ে ফেললে তবে আমরা ক্ষতিগ্রস্ত হব।

বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে চা প্রদর্শনী-২০১৮ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় বাণিজ্য সচিব শুভাশীষ বসুসহ বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, সেজন্য আমার ব্যক্তিগত মতামত ৪০ টাকার নিচে কখনও চালের দাম আসবে না আর। এটা আমি মনে করি কেজি প্রতি মোটা চালের দাম ৪০ টাকার নিচে আসা বাস্তবসম্মত নয়। সুতরাং চালের দাম অ্যারাউন্ড ৪০ টাকাই থাকবে এবং সেটাই বর্তমানে আছে।

আগামী ১৮ থেকে ২০ ফেব্রুয়ারি ঢাকার বসুন্ধরা আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটিতে চা বোর্ডের উদ্যেগে ‘বাংলাদেশ চা প্রদর্শনী ২০১৮’ প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

বাংলাদেশ খাদ্য উদ্বৃত্ত হলেও আমদানি বেড়েই চলছে, তাহলে বাংলাদেশ খাদ্য ঘাটতির দিকে যাচ্ছে কি না –

সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে তোফায়েল বলেন, গতবছর আমাদের ও প্রতিবেশী দেশ ভারতে বন্যায় পেঁয়াজ ও ধানের ক্ষতি হয়েছে। এজন্য কাঙ্খিত ফলন হয়নি। আমরা এখন খাদ্য উদ্বৃত্ত দেশ হিসেবে থাকব। বন্যার পর ফসল আসতেছে এবং ফসল আসবে। তাতে আমরা ফসল উদ্বৃত্ত দেশ হিসেবে থাকব।

খাদ্য আমদানি পরিস্থিতির তুলে ধরে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত সরকারি খাতে ১০ লাখ ১০ হাজার মেট্রিক টন খাদ্য আমদানি হয়েছে। এর মধ্যে চাল ৬ লাখ ৪৯ হাজার মেট্রিক টন এবং গম ৩ লাখ ৬১ হাজার মেট্রিক টন। আর বেসরকারি কাতে ৫৬ লাখ ৬৪ হাজার মেট্রিকটন খাদ্যশষ্য। চাল ১৯ দশমিক ৩২ লাখ মেট্রিক টন এবং গম ৩৭.৩২ লাখ মেট্রিক টন। ২৩ জানুয়ারি পর্যন্ত সরকারি-বেসরকারি খাতে মোট চাল আমদানির পরমিাণ ২৫ লাখ মেট্রিক টন।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক