বিভিন্ন জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

বিভিন্ন জেলায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি

দেশের বিভিন্ন স্থানে বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। প্রতিদিনই নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে। এদিকে, কুড়িগ্রামের ‘রৌমারী’ উপজেলাকে বন্যাদুর্গত হিসেবে ঘোষণা করেছে নির্বাহী কর্মকর্তা। বন্যা কবলিত এলাকায় দেখা দিয়েছে পানিবাহিত বিভিন্ন রোগ। খাবার ও বিশুদ্ধ পানির অভাবে চরম ভোগান্তি পোহাচ্ছেন লাখ লাখ পানিবন্দি মানুষ। পর্যাপ্ত ত্রাণ সহায়তা পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ তাদের।

তবে স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তাদের দাবি, দুর্গত এলাকার মানুষের সহযোগিতায় তৎপর রয়েছেন তারা।

জামালপুর: জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতি ভয়াবহ রূপ নেয়ার কারণে পানিবন্দী হয়ে চরম অসহায়ভাবে দিন কাটাচ্ছেন ৬ উপজেলার প্রায় দুই লাখ মানুষ। বন্ধ করে দেয়া হয়েছে ২ শতাধিক স্কুল। এদিকে ইসলামপুর উপজেলায় গত ৫দিনে বন্যার পানিতে ডুবে ৪ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। পর্যাপ্ত ত্রাণ সহযোগিতা না পাওয়ার অভিযোগ দুর্গতদের।

কুড়িগ্রাম: বন্যার পানিতে প্লাবিত হয়েছে কুড়িগ্রামের ৫৬টি ইউনিয়নের ৭১৯টি গ্রাম। তলিয়ে গেছে ফসলের মাঠ। হাজার হাজার পুকুর দীঘি তলিয়ে যাওয়ায় ভেসে গেছে কোটি কোটি টাকার মাছ ও পোনা। এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন মাছ চাষিরা।

সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জে ৫টি উপজেলার ৩৫টি ইউনিয়ন ২ লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। বিশুদ্ধ পানি ও খাদ্যের সংকটে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন তারা।

শরীয়তপুর: শরীয়তপুরের বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। নতুন করে পানি ঢুকে পড়েছে পৌরশহরের বিভিন্ন ওয়ার্ডে। এছাড়া বন্যায় তলিয়ে আছে ২৫টি ইউনিয়নের ২ শতাধিক গ্রাম। স্যানিটেশন ব্যবস্থা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় ডায়রিয়াসহ নানা রোগে আক্রান্ত হচ্ছে বানভাসীরা।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক