অবশেষে বার্সেলোনার সাথে জিতল ম্যানচেস্টার সিটি

অবশেষে বার্সেলোনার সাথে জিতল ম্যানচেস্টার সিটি

জাত চেনালেন পেপ গুয়ার্দিওয়ালা৷ শেষ পাঁচ ম্যাচে বার্সেলোনার বিরুদ্ধে মাথা নীচু করেই মাঠ ছাড়তে হয়েছিল বিশ্বফুটবলের অন্যতম সেরা কোচকে৷ কিন্তু বুধবার নিজের ঘরের মাঠ এতিহাদ স্টেডিয়ামে কাতালান ক্লাবকে ৩-১ হারিয়ে দিল তাঁর ছেলেরা৷‘সি’ গ্রুপে আগের ম্যাচেই ন্যু ক্যাম্প থেকে মেসির হ্যাটট্রিকে ৪-০ গোলে বিধ্বস্ত হয়ে এসেছিল সিটি। চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এর আগের চারটি ম্যাচেও এনরিকের কাছে হারতে হয়েছিল তাঁকে। কিন্তু এদিন সব হিসেব পাল্টে দিলেন পেপ৷ ইকে গুনদোগান এম্যাচে জোড়া গোল করলনে৷ কেভিন ডি ব্রুইনও চমৎকার ফ্রি-কিকে গোল করলেন৷ বার্সার হয়ে একমাত্র গোল লিও মেসির৷

ম্যাচের ২১তম মিনিটে বার্সাকে এগিয়ে দেন মেসি। বার্সেলোনার ডি-বক্সের কাছ থেকে শুরুটা মেসির পা থেকেই। বাঁ-দিকে নেইমারকে লম্বা পাস দিয়ে কেবল এগিয়েছেন প্রতিপক্ষের ডি-বক্সের দিকে। নেইমারের ফেরত পাঠানো বল নিয়ন্ত্রণ নিতে নিতেই ডি-বক্সে ঢুকে বাঁ পায়ের শটে জালে পাঠান আর্জেন্টিনার অধিনায়ক৷ চ্যাম্পিয়ন্স লিগের চলতি আসরে তিন ম্যাচে সাত গোল হয়ে গেল মেসির৷ আগের দু’ম্যাচে হ্যাটট্রিকও রয়েছে বার্সার রাজপুত্রের৷৩৯ মিনিটেই সমতায় ফেরে সিটি৷ সের্জিও রবের্তোর ভুলে দলকে ফেরান গুনদোগান। রবের্তোর পাস ধরে ফেলে আগুয়েরো বাড়িয়েছিলেন স্টার্লিংকে। তার ক্রস থেকে আলতো টোকায় বল জালে পাঠান জার্মান মিডফিল্ডার গুনদোয়ান। প্রথমার্ধে খেলার ফল ১-১ থাকে৷

ম্যাচের ৫১ মিনিটে দুর্দান্ত ফ্রি-কিকে দলকে এগিয়ে দেন ডি ব্রুইন।বলে হাত লাগিয়েও শেষ রক্ষা করতে পারেননি বার্সার গোলরক্ষক৷ এরপর ৭৪তম মিনিটে ডি-ব্রুইনের বাড়ানো বল থেকে জেসাস নাভাসের ক্রস আগুয়েরোর গায়ে লেগে যায়ে৷ সেখান থেকেই ব্যবধান বাড়ান গুনদোয়ান। এক এই গোলই বার্সার কফিনে শেষ পেরক পুঁতে দেয়৷ চার ম্যাচে ন পয়েন্ট নিয়ে ‘সি’ গ্রুপে শীর্ষেই আছে লুইস এনরিকের দল। সাত পয়েন্টের সৌজন্যে এর পরেই সিটি।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট