বাংলাদেশ বিশ্বের ১২৩টি দেশে ওষুধ রপ্তানি করছে

বাংলাদেশ বিশ্বের ১২৩টি দেশে ওষুধ রপ্তানি করছে

নিউজিল্যান্ডে ওষুধ ও চামড়া রপ্তানি বাড়ানো হবে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।বুধবার বাংলাদেশ সচিবালয়ে বাণিজ্যমন্ত্রীর অফিস কক্ষে ঢাকায় নিযুক্ত নিউজিল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত গ্রাহাম মার্টনের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা জানান।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, নিউজিল্যান্ডে ওষুধ ও চামড়া রপ্তানি বৃদ্ধি করা হবে। সেখানে বাংলাদেশের এ সব পণ্যের প্রচুর চাহিদা রয়েছে।

তিনি বলেন, নিউজিল্যান্ড বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য বৃদ্ধি করতে আগ্রহী। বাংলাদেশ নিউজিল্যান্ড থেকে দুধ আমদানির মাধ্যমে পণ্য তৈরি করে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করে আসছে।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, দুই দেশের বাণিজ্য খুব বেশি নয়। গত বছর বাংলাদেশ নিউজিল্যান্ডে রপ্তানি করেছে ৭৩ দশমিক ৬৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার। একই সময়ে আমদানি করেছে ১৫০ দশমিক ৪০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের পণ্য।

তিনি বলেন, এই মুহূর্তে দু্‌ই দেশের বাণিজ্য নিউজিল্যান্ডের পক্ষে হলেও এখন বাংলাদেশের রপ্তানি বাড়ানোর সুযোগ এসেছে।

তোফায়েল আহমেদ বলেন, বিশ্ববাণিজ্য সংস্থা এলডিসিভুক্ত দেশগুলোর জন্য ট্রিপস চুক্তির মেয়াদ ১৭ বছর বৃদ্ধি করেছে। এ সুযোগ বাংলাদেশ কাজে লাগাতে উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ বিশ্বের ১২৩টি দেশে ওষুধ রপ্তানি করছে। বাংলাদেশের ওষুধের মান বেশ ভালো। বাংলাদেশের বিশ্বমানের ওষুধ তুলনামূলক কম মূল্যে সরবরাহ করছে। নিউজিল্যান্ডে বাংলাদেশের তৈরি ওষুধের প্রচুর চাহিদা রয়েছে। চলতি সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা মোতাবেক যে সব পণ্য রপ্তানি বৃদ্ধির উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে, ওষুধ তার মধ্যে অন্যতম বলে তিনি উল্লেখ করেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ২০২১ সালে বাংলাদেশ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার মূল্যের ওষুধ রপ্তানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে। নিউজিল্যান্ড বাংলাদেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বাজার হতে পারে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

রাষ্ট্রদূত বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রশংসা করে বলেন, বাংলাদেশের অনেক পণ্যের প্রচুর চাহিদা রয়েছে নিউজিল্যান্ডে। বাণিজ্য সুবিধা বৃদ্ধির মাধ্যমে দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্য আরো বৃদ্ধি করা সম্ভব।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে অতিরিক্ত সচিব (রপ্তানি) জহির উদ্দিন আহমেদ, যুগ্ম সচিব (এফটিএ) মুনির চৌধুরী এ সময় উপস্থিত ছিলেন

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক