ট্রেনের ছাদ থেকে ফেলে হত্যার দায়ে দু’জনের ফাঁসির রায়

ট্রেনের ছাদ থেকে ফেলে হত্যার দায়ে দু’জনের ফাঁসির রায়

গাজীপুরে টাকা ও মোবাইল ফোন ছিনতাই করে ট্রেনের ছাদ থেকে ফেলে এক যাত্রীকে হত্যা ও অপর দুই যাত্রীকে আহত হরার অপরাধে দুইজনকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে তাদেরকে বিভিন্ন মেয়াদে সশ্রম কারাদন্ডসহ অর্থদন্ড দেয়া হয়েছে। গাজীপুর জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক একেএম এনামুল হক বুধবার দুপুরে ওই রায় দিয়েছেন। এসময় দন্ডপ্রাপ্ত আসামীরা আদালতের কাঠগড়ায় উপস্থিত ছিলো। দন্ডপ্রাপ্ত হলেন- ময়মনসিংহের তারাটি চরপাড়া গ্রামের হাবুল মিয়ার ছেলে রাসেল মিয়া (১৯) ও মৌলভীবাজার জেলার বিছামনি গাংপাড়া গ্রামের মৃত হোসেন মিয়ার ছেলে মুন্না মিয়া (২৫)।

গাজীপুর আদালতের ইন্সপেক্টর মো. রবিউল ইসলাম জানান, চলতি বছরের ২২ মার্চ রাতে আন্ত:নগর মহানগর এক্সপ্রেস ট্রেন ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম যাচ্ছিল। পথে ঢাকার শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে ওই ট্রেনের ছাদে চড়ে বগুড়ার দুপচাচিয়া থানার জিয়ানগর গ্রামের মো. আব্দুল আজিজের ছেলে মো. আবু সাঈদ (১৮), কক্সবাজারের উখিয়া থানার রুমকা গ্রামের মৃত ফজলুল হকের ছেলে হাসান মাহমুদ (২৬) ও নওগাঁর বদলগাছি থানার মিঠাপুর ফকিরপাড়া গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে আব্দুল মমিন (১৮) ভ্রমন করছিলেন। ট্রেনটি গাজীপুরের টঙ্গী রেলওয়ে ষ্টেশন অতিক্রমের পর কালীগঞ্জের শিমুলিয়া এলাকা অতিক্রমকালে রাত পৌণে ১০টার দিকে ৪/৫জন সশস্ত্র দুর্বৃত্ত ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে ট্রেনের ছাদে ভিকটিম আব্দুল মোমিনকে মারপিট এবং ছুরিকাঘাত করে। এ

সময় অপর যাত্রি আবু সাঈদ এবং হাসান মাহমুদ তাদের বাঁধা দিলে দুর্বৃত্তরা তাদের টাকা পয়সা ও মোবাইল সেট ছিনতাই করে হত্যার উদ্দেশ্যে ওই তিন যাত্রীকে ট্রেনের ছাদ থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই আব্দুল মোমিন মারা যান এবং অপর দুইজন গুরুতর আহত হন। খবর পেয়ে রেলওয়ে পুলিশ হতাহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। এঘটনায় পরদিন নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির এটিএসআই মোঃ মাহবুবুল আলম বাদি হয়ে ভৈরব রেলওয়ে থানায় মামলা দায়ের করে। পরে আহতদের জবানবন্দি নিয়ে দুইজনকে ২৭ মার্চ গ্রেপ্তার করে আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ। তদন্ত শেষে ভৈরব রেলওয়ে থানার এসআই মো. আদম আলী চলতি বছরের ৩১ জুলাই চার্জশিট দাখিল করে। মামলাটি পরে ওই থানা থেকে গাজীপুর জজ আদালতে প্রেরণ করা হয়। ৩১ অক্টোবর অভিযোগ গঠনের পর ১৩ জনের স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে বুধবার আদালতের বিচারক ওই মামলার রায় দেন। রায়ে চলন্ত ট্রেনের ছাদ থেকে মমিনকে ফেলে হত্যার অভিযোগে ওই দুজনকে মৃত্যুদন্ড ও পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা, অপর ধারায় (পেনাল কোডের ৩০৭/৩৪) তাদের দুইজনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড ও ১হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে এক মাসের সশ্রম কারাদন্ড এবং অপর ধারায় (পেনাল কোডের ৩৯২/৩৪) ১০বছরের সশ্রম কারাদন্ড ও ১০হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে একমাসের সশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়েছে।

মামলায় রাষ্ট্রপক্ষে আইজীবী ছিলেন পিপি অ্যাডভোকেট মো. হারিছ উদ্দিন আহম্মেদ। আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মো. ইউসুফ আলী।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক