বিনাবিচারে ৪ কারাবন্দিকে হাইকোর্টে হাজিরের নির্দেশ

বিনাবিচারে ৪ কারাবন্দিকে হাইকোর্টে হাজিরের নির্দেশ

১৬ বছর বিনাবিচারে কারাগারে আটক শফিকুল ইসলাম শিপন নামে একজনের জামিনের দুই সপ্তাহের মধ্যে কারাবন্দি আরও ৪ জনকে হাইকোর্টে হাজির করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। হত্যা মামলার আসামি এ চারজন গত দেড় যুগ বিনাবিচারে কারাবন্দি রয়েছেন।

স্বঃপ্রণোদিত হয়ে রবিবার (২০ নভেম্বর) হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি জেবিএম হাসানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন। একটি বেসরকারি চ্যানেলে প্রচারিত একটি প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে হাইকোর্ট স্বঃপ্রণোদিত হয়ে এ আদেশ দিয়েছেন।

আগামী ৪ ডিসেম্বর তাদের আদালতে হাজির করতে গাজীপুরের কাসেমপুর কারা কর্তৃপক্ষকে বলা হয়েছে। ওই দিনের মধ্যে নিম্ন আদালতকে তাদের বিষয়ে তথ্য দিতেও নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

অ্যাডভোকেট কুমার দেবুল দে ব্রেকিংনিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এই চার আসামির বিষয়ে প্রচারিত প্রতিবেদনটি তিনিই হাইকোর্টের নজরে আনেন।বিনাবিচারে দেড়যুগ ধরে কারাগারে থাকা চাঁন মিয়া, মকবুল, সেন্টু ও বিল্লাল।

গত ১৮ বছর ধরে কাশিমপুর কারাগারে বিনাবিচারে আটক থাকা চাঁন মিয়া ১৯৯৯ সাল থেকে বন্দি অবস্থায় আছেন ঢাকার শ্যামপুর থানার একটি হত্যা মামলায়। এই দেড় যুগ চাঁন মিয়ার বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া হত্যা মামলার কোন অগ্রগতিই হয়নি। মামলাটি বর্তমান বিচারাধীন ঢাকার পরিবেশ আদালতে।

একই ঘটনা মাদারীপুরের মকবুল হোসেনেরও। কারাগারে ৬৬৬ পরিচয়ধারী মকবুল রাজধানীর উত্তরা থানার একটি হত্যা মামলায় গ্রেফতার হয়েছিলেন ২০০০ সালে। এর পর থেকে দীর্ঘ ১৭ বছর মামলাটি আর আলোর মুখ দেখেনি।  ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে মকবুলে পক্ষে আইনি লড়াই করারও কেউ ছিলো না।

মতিঝিলের এজিবি কলোনির সেন্টু কামাল গ্রেফতার হন ২০০১ সালে। সবশেষ গত মাসেও তাকে হাজির করা হয়েছিলো ঢাকার বিশেষ জজ আদালতে। কিন্তু এই দীর্ঘ ১৬ বছরে ৫৯ কার্যদিবস কারাগারে হাজির করা হলেও মামলা শেষ হয়নি।

মামলা শেষ হয়নি কুমিল্লার বিল্লাল হোসেনেরও। তেজগাঁও থানায় দায়ের হওয়া একটি হত্যা মামলায় বিল্লাল হোসেন কাশিমপুর কারাগারে বন্দি রয়েছেন ২০০২ সাল থেকে। তার মামলাটিও বিচারাধীন আছে ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতে।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক