মঙ্গল শোভাযাত্রাকে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ঘোষণা করল ইউনেস্কো

মঙ্গল শোভাযাত্রাকে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ঘোষণা করল ইউনেস্কো

মঙ্গল শোভাযাত্রাকে সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ঘোষণা করেছে জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কো। বুধবার ইউনেস্কোর এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘রিপ্রেজেন্টেটিভ লিস্ট অফ ইনট্যানজিয়েবল কালচারারল হেরিটেজ অফ হিউমিনিটি’র তালিকায় মঙ্গল শোভাযাত্রা অন্তর্ভুক্ত হয়েছে।

ইথিওপিয়ার আদ্দিস আবাবায় বিশ্বের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য রক্ষায় আন্তঃদেশীয় কমিটির একাদশ বৈঠকে এ ঘোষণা দেয়া হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইন্সটিটিউটের উদ্যোগে প্রতিবছরই পহেলা বৈশাখে এই মঙ্গল শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। এই শোভাযাত্রায় চারুকলার শিক্ষক শিক্ষার্থী ছাড়াও বিভিন্ন স্তরের, বিভিন্ন বয়সের মানুষ অংশগ্রহণ করে। এই শোভাযাত্রায় বিভিন্ন ধরনের প্রতীকী শিল্পকর্ম বহন করা হয়। থাকে বাংলা সংস্কৃতির পরিচয়বাহী নানা প্রতীকী উপকরন, রং বেরংয়ের মুখোশ ও বিভিন্ন প্রাণীর প্রতিকৃতি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইন্সটিটিউটের উদ্যোগে ১৯৮৯ সাল থেকে শুরু হয়েছিল মঙ্গল শোভাযাত্রা।

কমিটির সিদ্ধান্তে বলা হয়, বাংলা নববর্ষে চারুকলার ছাত্র ও শিক্ষকদের আয়োজিত মঙ্গল শোভাযাত্রা নিজেদের জীবন্ত ঐতিহ্য নিয়ে বাংলাদেশের মানুষের গর্ব ও অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মানুষের শক্তি ও সাহস প্রদর্শন করে। এটি ন্যায় ও সত্যের প্রতি বাংলাদেশের মানুষের আস্থার চিত্রটি প্রতিফলিত করে। জাতি, বর্ণ, ধর্ম ও সব ধরণের মানুষের উৎসব হিসেবে এই উৎসব গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ প্রতিফলিত করে বলে কমিটির সিদ্ধান্তে বলা হয়।

ইউনেস্কোয় বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি এম শহীদুল ইসলাম কমিটিতে বাংলাদেশের ৪ সদস্যের দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। কমিটির অন্য সদস্যরা হচ্ছেন ইথিওপিয়া ও আফ্রিকান ইউনিয়নে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো মনিরুল ইসলাম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের ডিন প্রফেসর নিসার হোসেন ও প্যারিসে বাংলাদেশ দূতাবাসের ফার্স্ট সেক্রেটারি ফারহানা আহমেদ চৌধুরী।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট