এক রাতের মধ্যেই কমিয়ে ফেলুন ব্রণের লালচে ফোলাভাব

এক রাতের মধ্যেই কমিয়ে ফেলুন ব্রণের লালচে ফোলাভাব

সকালে ঘুম থেকে উঠেই আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে মুখে ব্রণ দেখলে যে কারো মন খারাপ হয়ে যেতে পারে। কোনো অনুষ্ঠান বা মিটিং এ যাওয়ার আগে যদি মুখে ব্রণ দেখতে পান তখন মনটা আরো বেশি খারাপ হয়ে যায়। আত্মবিশ্বাস কিছুটা হলেও কমে আসে। অনেকেই মুখে ব্রণের লালচে ফোলাভাবের কারণে মন খারাপ করে বসে থাকেন, কারণ কিছুই করার নেই। অনেকে আবার ব্রণটি গলিয়ে ফেলে ভাবেন লালচে ভাব কমে গেছে। কিন্তু এতে আসলে উল্টোটাই হয়। লালচে ভাবতো বাড়েই সেই সাথে ক্ষতের সৃষ্টি হয়। তাই এসব কিছু না করে আগের দিন রাতে কিছু কাজ করুন। মাত্র এক রাতের মধ্যেই কমিয়ে ফেলুন ব্রণের লালচে ফোলাভাব।

বরফ এবং মধু ও দারুচিনির পেস্টের ব্যবহার মুখ খুব ভালো করে ধুয়ে মুছে নিন। এরপর এক টুকরো বরফ নিয়ে ব্রণের ওপর আলতো করে গোল গোল করে ঘুরিয়ে নিন। দুই মিনিট ঘষার পর একটি টিস্যু দিয়ে আলতোভাবে ভালো করে মুছে নিন। মধু ও দারুচিনিগুঁড়ো মিশিয়ে পেস্ট করে নিন। এরপর আঙুলের ডগায় নিয়ে তা ব্রণের ওপরে ভালো করে লাগিয়ে নিন। এভাবে ঘুমাতে চলে যান। মধুর অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান ব্রণের জন্য দায়ী ব্যাকটেরিয়া দূর করতে সহায়তা করবে। সকালে উঠে দেখুন ব্রণের লালচে ফোলাভাব একেবারেই কমে গেছে।

টুথপেস্টের ব্যবহার- মুখ খুব ভালো করে ধুয়ে মুছে নিন। এরপর মিন্ট ফ্লেভারের টুথপেস্ট ব্রণের ওপর লাগান। এভাবে সারারাত লাগিয়ে রাখুন। সকালে উঠে মুখ ধুয়ে দেখুন জাদু। ব্রণের লালচে ফোলাভাব কমে যাবে।

অ্যাসপিরিনের ব্যবহার- বাজারে যে সকল সাধারণ ননজেলিক কোট ব্যতীত অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট পাওয়া যায় তা কিনুন। অর্ধেকটা ট্যাবলেট ভেঙে গুঁড়ো করে নিন। খুব সামান্য (২/১ ফোঁটা) পানি দিয়ে পেস্ট তৈরি করে তা ঠিক ব্রণের ওপর লাগিয়ে নিন। একটি অ্যাডহেসিভ ব্যান্ডেজ দিয়ে লাগিয়ে রাখুন সারারাত। সকালে উঠে দেখবেন ব্রণের লালচে ফোলাভাব একেবারেই নেই।

সতর্কতাঃ

১. ব্রণ ফেটে গেলে তার ওপর ব্যবহার করতে যাবেন না। এতে ত্বকের ক্ষতি হতে পারে।

২. টুথপেস্ট ও অ্যাসপিরিনের পেস্ট ব্যবহারের সতর্ক থাকুন। পেস্ট যেনো শুধু ব্রণের ওপরই পড়ে। নতুবা ত্বক শুষ্ক হয়ে যাওয়ার ভয় থাকে।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট