সিরিয়য় বোমাবর্ষণ নিহত ২৭

সিরিয়য় বোমাবর্ষণ নিহত ২৭

সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কের পূর্ব দিকে বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রিত একটি এলাকায় সরকারি জঙ্গি বিমানগুলোর ব্যাপক বোমাবর্ষণে অন্তত ২৭ জন নিহত হয়েছেন।

রাজধানীর কাছে বিদ্রোহীদের এই প্র্রধান ‘ছিটমহলটিতে’ গত কয়েক মাসের মধ্যে সোমবার চালানো বিমান হামলাটিই সবচেয়ে ব্যাপক ছিল বলে জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দা ও সরকার বিরোধী আন্দোলনকারীরা। এই হামলায় বহু মানুষ আহত হয়েছেন বলেও জানিয়েছেন তারা।

রাজধানীর পূর্ব দিকে বিদ্রোহীদের শক্তিকেন্দ্র পূর্ব গৌতার প্রধান শহর দৌমার একটি ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় ওই দিন মোট চারবার বিমান হামলা চালানো হয়। এসব হামলায় অন্তত ২২ জন নিহত ও বহু মানুষ আহত হয়। বিধ্বস্ত ঘরবাড়ির ধ্বংসস্তূপের নিচে আরো অনেক লাশ আছে বলে জানিয়েছেন পৌর কর্মীরা।

বিরোধীপন্থি বেসামরিক প্রতিরক্ষা বিভাগ নিজেদের টুইটার একাউন্টে জানিয়েছে, ওই এলাকার হামুরিয়া, হারাস্তা এবং সাকবা শহরে ২১ বার বিমান হামলা চালানো হয়।

দৌমার দক্ষিণের সাকবার একটি বাজার চত্বরে চালানো বিমান হামলায় অন্তত পাঁচ জন নিহত হয়েছ্নে। রুশ জঙ্গিবিমানগুলো এসব হামলা চালিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে, জানিয়েছেন স্থানীয় দুই বাসিন্দা।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেসামরিক প্রতিরক্ষা বাহিনীর পোস্ট করা ফুটেজে দেখা গেছে, ভবনগুলোর ধ্বংস্তূপ থেকে বের করা আহতদের স্ট্রেচারে করে সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন স্বেচ্ছাসেবী ও বেসামরিকরা।

বিরোধীপন্থি ওরিয়েন্ট টিভিতে সম্প্রচারিত ওই ফুটেজে উত্তেজিত এক তরুণ চিৎকার করে বলছিলেন, “আমরা বেসামরিক। তারা আমাদের মারছে কেন? আমাদের মাথার উপর জঙ্গিবিমান। এখানে কোনো সন্ত্রাসী নেই।”

সোমবার সিরীয় সেনাবাহিনী জানিয়েছে, পূর্ব গৌতার জোবার, আরবিন, জামালকা ও অন্যান্য এলাকায় বিদ্রোহী অবস্থানের প্রধান অংশে আঘাত হেনেছে তারা, এসব হামলায় বহু মিসাইল লঞ্চার ধ্বংস ও অনেক ‘সন্ত্রাসী’ নিহত হয়েছে।

সেনাবাহিনী আরো জানিয়েছে, তারা বিদেশিদের মদতপুষ্ট সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াই করছে যারা রাজধানীর সরকার নিয়ন্ত্রিত এলাকাগুলোতে মর্টারের গোলা নিক্ষেপ করছে।

তাদের অভিযানে কোনো বেসামরিক এলাকাকে লক্ষ্যস্থল করা হয়নি বলে দাবি করেছে সেনাবাহিনী।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট