সিটিং সার্ভিস থাকছে আরো ১৫ দিন

সিটিং সার্ভিস থাকছে আরো ১৫ দিন

সরকারের নির্ধারিত ভাড়ায় আরো ১৫ দিন রাজধানীতে সিটিং সার্ভিস চলবে। পাশাপাশি এ সময়ে বন্ধ থাকবে অভিযান। তবে যারা বাস বন্ধ রেখেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বললেন, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটির) চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান।

বুধবার বিকেলে বিআরটিএ ও বাস মালিক সমিতির জরুরি বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন তিনি। তেজগাঁও এলেনবাড়ি বিআরটিএ অফিসে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বৈঠকে পরিবহন মালিক, বিশেষজ্ঞ, যাত্রী ও নাগরিক প্রতিনিধি এবং বিআরটিএ চেয়ারম্যান-সচিবসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিআরটিএ চেয়ারম্যান বলেন, ১৫ দিন সিটিং সার্ভিসের বিরুদ্ধে কোনো আইনি পদক্ষেপ নেয়া হবে না। এ সার্ভিস চালু থাকবে। ১৫ দিনের মধ্যে সিটিং সার্ভিসকে কীভাবে আইনি কাঠামোর মধ্যে আনা যায় তা নিয়ে পর্যালোচনা হবে।

তিনি বলেন, জনদুর্ভোগ কমাতে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। ১৫ দিন সিটিং সার্ভিসের বিরুদ্ধে কোনো শাস্তিমূলক ব্যবস্থা না নেয়া হলেও অন্য বাসগুলোর বিরুদ্ধে যে অভিযান চলছে তা অব্যাহত থাকবে।

এসময় সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার এনায়েতুল্লাহ বলেন, গণপরিবহনে শৃঙ্খলা ফেরানো নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়। রাজধানীবাসীর কথা চিন্তা করে তাদের মতামত নিয়ে রাজধানীতে বিশেষ ব্যবস্থায় কিছু বাস সার্ভিস চালু করা যায় কিনা তা বৈঠকে আলোচনা হয়। যা নীতিমালা ঠিক করে বিশেষ রং ব্যবহার করা যেতে পারে।

গেল রোববার বিআরটিএ ও মালিক সমিতি জরুরি মিটিং শেষে সিটিং, গেটলক বা স্পেশাল সার্ভিস বন্ধে রাজধানীতে অভিযানের ঘোষণা দেন বিআরটিএ চেয়ারম্যান। ৪ এপ্রিল আরেক সংবাদ সম্মেলনে ১৫ এপ্রিল থেকে ঢাকার বাস-মিনিবাসে সিটিং সার্ভিস প্রথা বাতিলের কথা জানায় ঢাকা সড়ক পরিবহন সমিতি।

এর আগে ৩০ মার্চ সিটিং সার্ভিস বন্ধের যৌক্তিকতা নিয়ে পরিবহন মালিকদের সংগঠন ঢাকা সড়ক পরিবহন সমিতির নেতারা বৈঠক করেন। রাজধানীতে সিটিং, গেটলক বা স্পেশাল সার্ভিস নাম দিয়ে একটি চক্র বিআরটিএ’র দেয়া ভাড়ার তালিকার বাহিরে নিজেদের মতো অতিরিক্ত টাকা হাতিয়ে নেন। যা বিআরটিএ ও মালিক সমিতিকে ভাবিয়ে তোলে।

পরে তারা এ নিয়ে অনুসন্ধান চালালে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের সত্যতা মেলে। এ পরিস্থিতিতে সার্ভিস বন্ধের সিদ্ধান্ত নেন তারা।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক