চীনের প্রেসিডেন্ট সৈন্যদের যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হওয়ার নির্দেশ দিলেন

চীনের প্রেসিডেন্ট সৈন্যদের যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত হওয়ার নির্দেশ দিলেন

চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিং পিং সেনাবাহিনীকে যুদ্ধের জন্য তৈরি থাকার নির্দেশ দেন। শুধু তাই নয়, যত তাড়তাড়ি সম্ভব অত্যাধুনিক যুদ্ধ কৌশল রপ্ত করতেও পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

সময়ের সঙ্গে দ্রুত পাল্টে যাচ্ছে রণপ্রযুক্তি। আধুনিক যুদ্ধ কৌশলের গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে তথ্যপ্রযুক্তি ও মহাকাশ বিজ্ঞান। পাল্টে যাওয়া রণক্ষেত্রে সাফল্য পেতে সদ্যগঠিত ৮৪টি সেনা ইউনিটের প্রধানদের সচেতন হতে নির্দেশ দিলেন প্রেসিডেন্ট শি জিং পিং, যিনি প্রায় ৪৩ কোটি সৈন্য বিশিষ্ট পিপল্‌স লিবারেশন আর্মির প্রধানও বটে।

অত্যাধুনিক যুদ্ধরীতির সঙ্গে পরিচিত হতে দীর্ঘ প্রশিক্ষণের উপরও জোর দিয়েছেন শি জিং পিং। মনে করা হচ্ছে, সম্প্রতি দক্ষিণ কোরিয়ায় শক্তিশালী রাডার বিশিষ্ট মার্কিন থাড (টার্মিনাল হাই অল্টিচ্যুড এরিয়া ডিফেন্স) মিসাইলের মোকাবিলা করতেই চিনের এই উদ্যোগ।

জানা গিয়েছে, আমেরিকার অত্যাধুনিক প্রযুক্তিতে তৈরি থাড মিসাইলের রাডার প্রায় সমগ্র চীনের উপর নজরদারি করতে সক্ষম। শুধু তাই নয়, দক্ষিণ চীন সাগরে ভারত ও জাপানের মতো প্রতিবেশী রাষ্ট্রকে চাপে রাখতেও আধুনিক যুদ্ধ কৌশল রপ্ত করার বিষয়ে জোর দিচ্ছে চীন।

প্রশাসনিক সূত্রে কিছু জানানো না হলেও অভ্যন্তরীণ সূত্রে জানা যায়, বিশ্বের বৃহত্তম সেনাবাহিনীর বহর কমাতে উদ্যোগী হয়েছে বেজিং। জানা গিয়েছে, ইতোমধ্যে প্রায় ৩ লক্ষ সৈন্যকে ছাঁটাই করা হয়েছে। এর পর বাহিনীর ভিতর থেকেই প্রচুর বাছাইয়ের ফলে তৈরি করা হয়েছে ৮৪টি বিশেষ ক্ষমতা সম্পন্ন বিশাল আকারের সেনা ইউনিট।

গত ডিসেম্বর মাসে এক বৈঠকেও সেনাবাহিনীর পরিমান কমানোর কথা উল্লেখ করেছিলেন প্রেসিডেন্ট শি জিং পিং। তাঁর দাবি, তুলনায় ছোট বহরের ফৌজ যুদ্ধক্ষেত্রে অনেক বেশি কার্যকর হবে। সেই বাহিনীকে অত্যাধুনিক রণরীতির পাঠ দিয়ে এবার অপরাজেয় করাই বেজিংয়ের লক্ষ্য।

 

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট