মন্দিরের ভেতরে সাধ্বীকে গণধর্ষণ

মন্দিরের ভেতরে সাধ্বীকে গণধর্ষণ

ভারতের উত্তরপ্রদেশের এক মন্দিরের সাধ্বী গণধর্ষণের শিকার হয়েছেন মন্দিরের ভেতরেই। উত্তরপ্রদেশের মথুরা জেলার রাধারানি শ্রীজি মন্দিরের দুই কর্মচারী ওই সাধ্বীকে ধর্ষণ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

পরিবার হারিয়ে চার বছর আগে তিনি মন্দিরের সাধ্বী হয়েছিলেন। বিশ্বাসে ভর করে শুধুমাত্র সাধ্বী হওয়ার জন্যই ঘরবাড়ি ছেড়ে ওডিশা থেকে চলে এসেছিলেন মথুরায়। মথুরার সেই রাধারানি মন্দিরেই গণধর্ষণের শিকার হতে হয়েছে তাকে। গণধর্ষণ করেছে মন্দিরেরই দুই কর্মচারী।

পুলিশের কাছে অভিযোগ জানিয়েছেন ওই নারী। সোমবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে। এ ঘটনায় কানহাইয়া যাদব নামে মন্দিরের এক নিরাপত্তারক্ষীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রাজেন্দ্র ঠাকুর নামে অপর এক অভিযুক্তকে ধরতে অভিযান চালাচ্ছে।

পুলিশ বলছে, ৪৫ বছরের ওই নারী ওডিশার বাসিন্দা। কয়েক বছর আগে তার স্বামী এবং পুত্র মারা যায়। তারপরই তিনি এই মন্দিরের সাধ্বী হন। দিনে মন্দিরের কাজকর্ম সারার পর তিনি মন্দিরের বারান্দাতেই ঘুমিয়ে পড়েন। রাত বাড়লে মন্দির চত্বর ফাঁকা হয়ে যায়। আর তখনই ঘুমের মধ্যে মুখ চেপে ধরে তাকে অন্য একটি ঘরে নিয়ে যায় দুই কর্মী। সেখানেই তাকে গণধর্ষণ করা হয়।

এর পরদিন ওই নারী মথুরা থানায় যান। কিন্তু অভিযোগ গুরুত্ব দেয়ার বদলে কর্তব্যরত পুলিশ তার সঙ্গে অসহযোগিতা করে বলে অভিযোগ করেন। পরে সংবাদমাধ্যমে বিষয়টি সামনে আসার তিনদিন পর বৃহস্পতিবার পুলিশ ওই নারীর অভিযোগ নেয়।

মথুরা থানার কর্তব্যরত এক কর্মকর্তা জানান, ভাষা সমস্যার জন্যই তারা প্রথমে বিষয়টি বুঝতে পারেননি। সেজন্যই প্রথমে অভিযোগ নেয়া হয়নি।

মথুরার এসএসপি স্বপনীল ম্যানগায়েন জানান, ওই নারীকে মেডিকেল পরীক্ষার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। তার ভাষা বোঝার জন্য অনুবাদক আনা হয়েছে। মন্দিরের সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখার পর একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তদন্তও শুরু হয়েছে।

ভারতে যখন গুরমিত রাম রহিম সিংহের সাধ্বীদের ধর্ষণের ঘটনায় তোলপাড় চলছে ঠিক সেই সময়ে মন্দিরের ভেতরে আরেক সাধ্বী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন। আনন্দবাজার।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট