বিয়ে বিচ্ছেদে নারীর চুল পড়ে!

বিয়ে বিচ্ছেদে নারীর চুল পড়ে!

মানুষ সৌন্দর্যের পূজারি। আর মাথার চুল মানুষের সৌন্দর্যকে বাড়িয়ে দেয় অনেকখানি। তাই তো, চুল পড়ে যাওয়া রোধ করতে কত কিছুই না করে থাকে মানুষ! চুল ধরে রাখতে মানুষকে বিশেষজ্ঞ চিকিত্সক থেকে শুরু করে কবিরাজের শরণাপন্ন হতেও দেখা যায় আজকাল। আবার অনেকেই বলে, মানুষের চুলের ওপর তার বয়স ও বংশগত বৈশিষ্ট্যের প্রভাব থাকে। এ কারণে নারী-পুরুষভেদে সবার চুল পড়ে।

কিন্তু নারীর চুল পড়ে যাওয়ার নতুন কারণ খুঁজে পেয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক ‘কেস ওয়েস্টার্ন রিজার্ভ স্কুল অব মেডিসিন’ নামের একটি প্রতিষ্ঠান। একটি কেস স্টাডিতে প্রতিষ্ঠানটি দেখেছে, তালাকপ্রাপ্ত অথবা স্বামীহারা নারীর মাথায় চুল কম থাকে। অন্যদিকে সুখে থাকা বিবাহিত নারী কিংবা অবিবাহিত নারীর মাথায় বেশি চুল থাকে।

দ্য ডেইলি মেইল জানায়, ‘কেস ওয়েস্টার্ন রিজার্ভ ইউনিভার্সিটি স্কুল অব মেডিসিনের’ প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের চেয়ারম্যান বাহম্যান গুয়ুরন বলেন, বিয়ে বিচ্ছেদের কারণে নারীরা ভীষণ মানসিক চাপে থাকার কারণে এমনটি হতে পারে। তিনি আরও বলেন, সন্তানসম্ভবা মায়েরাও অনেক মানসিক চাপ বা কষ্টে থাকেন। এ জন্য সে সময় তাদের চুলও পড়ে যেতে দেখা যায়।

বাহম্যান গুয়ুরন আরও বলেন, বংশগত কারণ ও মানসিক চাপ-যন্ত্রণা—এসব ছাড়াও মাত্রাতিরিক্ত অ্যালকোহল পান এবং ধূমপানও নারীদের চুল পড়ে যাওয়ার অন্যতম কারণ। দেখতে প্রায় একই রকম, এমন ১৬৮ জন নারীর ওপর এই কেস স্টাডি করা হয়। সেখানে গবেষণাভুক্ত নারীদের জীবনধারা সম্পর্কে জানতে তাঁদের প্রশ্নপত্র সরবরাহ করা হয়। এ ছাড়া তাদের হরমোন-সংক্রান্ত পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার অবশেষে গবেষকেরা সিদ্ধান্তে পৌঁছেন।

গবেষকেরা আরও দেখেছেন, যেসব নারী কফি পান করেন, কড়া রোদ থেকে নিজেদের নিরাপদে রাখেন এবং সুখে শান্তিতে সংসার করেন, তাঁদের চুল পড়ে যাওয়ার আশঙ্কা অনেক কম। অবশ্য গবেষণায় দেখা গেছে, বিয়ে বিচ্ছেদের কারণে নারীদের মতো একইভাবে পুরুষদের চুল পড়ে যায় না। কিন্তু ধূমপান বা অতিরিক্ত অ্যালকোহল নিলে নারী-পুরুষভেদে সবারই চুল পড়ে যায়।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট