এই মুহূর্তে টলিডের সবচেয়ে দামি নায়িকা কে?

এই মুহূর্তে টলিডের সবচেয়ে দামি নায়িকা কে?

গত এক দশক ধরে টলিউডে দ্যুতি ছড়াচ্ছেন কলকাতার জনপ্রিয় নায়িকা শুভশ্রী গাঙ্গুলী। একই সঙ্গে প্রতিষ্ঠা পাওয়া আরও বেশ কয়েকজন দামি অভিনেত্রী কলকাতার ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি শাসন করেছেন এবং এখনও করছেন। কোয়েল মল্লিক, শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায়, পায়েল, মিমি, পাওলি দাম, নুসরাত আক্তার, সায়ন্তিকা ছাড়াও সে তালিকায় আছে আরও অনেক নাম।

এদের মধ্যে অভিনয়ে কে কতটা পারদর্শী, কার কয়টা ছবি ব্যবসাসফল হয়েছে, কে কতটা পুরস্কার ঘরে তুলতে পেরেছেন সেসব বিতর্ক তোলাই থাক। বর্তমানের প্রশ্ন নায়িকাদের পারিশ্রমিক নিয়ে। কে কত টাকা পান? টলিডের সবচেয়ে দামি নায়িকাই বা কে? এই প্রশ্নের উত্তর অবশ্য খুব একটা কঠিন না।  এই একটি জায়গায় অন্তত বর্তমানে সবাইকে ছাপিয়ে গেছেন শুভশ্রী। টলিউডে এই মুহূর্তে সবচেয়ে বেশি পারিশ্রমিক নেন তিনিই।

ভারতীয় মিডিয়ার খবর বলছে, ছবি প্রতি তার পারিশ্রমিক ২৩ লাখ রুপি। শুনতে কিছুটা অবাক লাগলেও টলিউডের ফিল্ম ইতিহাসের সবচেয়ে দামি নায়িকা কোয়েল মল্লিক ও ঋতুপর্ণাকেও ছাড়িয়ে গেছেন তিনি।  তবে কোয়েলও যে শুভশ্রীর চেয়ে একেবারে কম পান তা কিন্তু নয়। প্রতিটি ছবির জন্য তিনিও নেন ২০ লাখ রুপি। তার পরেই শ্রাবন্তী ও মিমির অবস্থান।  শ্রাবন্তী ১৮ এবং মিমি ১৭ লাখ করে নেন। একটা সময় যেখানে টলিউডের সবচেয়ে দামি অভিনেত্রী ছিলেন ঋতুপর্ণা।

২০০৭ সালে ‘মাতে তা লাভ হেলারে’ নামের একটি ওড়িশা ছবির মাধ্যমে অভিনয় জগতে পা রাখেন শ্রভশ্রী। ওই বছরই ‘পিতৃভূমি’র মাধ্যমে প্রথম বাংলা ছবিতে অভিনয় করেন তিনি। ছবিটিতে সুপারস্টার জিতের বোনের ভূমিকায় দেখা গিয়েছিল তাকে। নায়ক সোহমের বিপরীতে ‘বাজিমাত’ ছবিতে প্রথম নায়িকা হিসেবে অভিনয় করেন শুভশ্রী। প্রথম ছবিতেই দ্যুতি ছড়ান। এর পর একে একে উপহার দেন ‘চ্যালেঞ্জ’, ‘পরাণ যায় জ্বলিয়া রে’, ‘রোমিও’, ‘খোকাবাবু’ এবং ‘বস’ এর মতো ব্যবসাসফল সব ছবি।

বাংলাদেশের ছবিতেও অভিনয় করেছেন শুভশ্রী। চলতি বছরেই সুপারস্টার শাকিব খানের বিপরীতে ‘নবাব’ ছবিতে দেখা গিয়েছিল তাকে। ভারত-বাংলাদেশ যৌথ প্রযোজনার এই ছবিটিও ব্যবসাসফল। চলছে তার আরও একটি বাংলাদেশি ছবির কাজ। উত্তম আকাশ পরিচালিত যৌথ প্রযোজনার এ ছবিটির নাম ‘চালবাজ’। নতুন এ ছবিতেও তার নায়ক বাংলাদেশের সুপারস্টার শাকিব খান।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট