নয়াপল্টনে এমকে আনোয়ারের জানাজা সম্পূর্ণ

নয়াপল্টনে এমকে আনোয়ারের জানাজা সম্পূর্ণ

সদ্য প্রয়াত বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এমকে আনোয়ারের দ্বিতীয় নামাজে জানাজা মঙ্গলবার ১১টা ৫৫ মিনিটে নয়াপল্টনে দলটির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জানাজা শেষে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, বিএনপি এবং অঙ্গ সংগঠনের পক্ষ দিকে এম কে আনোয়ারের কফিনে ফুল দিয়ে শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয়।

রথম নামাজে জানাজা মঙ্গলবার সকাল ১০টায় কাঁটাবন মসজিদে অনুষ্ঠিত হয় তৃতীয় জানাজা জাতীয় সংসদ ভবনে দুপুর দেড়টায় অনুষ্ঠিত হবে।

এরপর আগামীকাল বুধবার বাদ জোহর কুমিল্লার তিতাস থানায় তার চতুর্থ জানাজা অনুষ্ঠিত হবে এবং বাদ আসর তার গ্রামের বাড়ি হোমনায় পঞ্চম জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন করা হবে।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং কর্মকর্তা শায়রুল কবির খান এ সব তথ্য জানিয়েছেন। মঙ্গলবার সকাল থেকেই এম কে আনোয়ারের বাসায় মরহুমের পরিবারকে সমবেদনা জানাতে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা এলিফ্যন্ট রোডের বাসভবনে যান।

প্রবীণ এই নেতার মৃত্যুতে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

সোমবার দিবাগত রাত ১টা ২০ মিনিটে রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোডের নিজ বাসভবনে বার্ধক্যজনিত কারণে ইন্তেকাল করেন তিনি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। বেশ কিছুদিন যাবৎ এমকে আনোয়ার বিভিন্ন রোগসহ বার্ধক্যজনিত সমস্যায় ভুগছিলেন।

১৯৩৩ সালের ১ জানুয়ারি কুমিল্লার হোমনায় জন্মগ্রহণ করেন এম কে আনোয়ার। তিনি পাঁচবার জাতীয় সংসদ সদস্য এবং দুইবার মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। সরকারি উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে তিন দশকেরও বেশি সময় দায়িত্ব পালন করেন। চাকরি জীবন থেকে অবসর নিয়ে নব্বইয়ের দশকে বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে জড়িয়ে যুক্ত হন তিনি।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ১৯৫৩ সালে সিএসপি কর্মকর্তা হিসেবে সরকারি চাকরিতে যোগ দেন এম কে আনোয়ার। পাকিস্তান ও বাংলাদেশ সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্বপালন করেন তিনি। এম কে আনোয়ার ১৯৯০ সালে রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ কর্মকর্তা কেবিনেট সচিব হিসেবে অবসরে যান । চাকরি থেকে অবসর নেওয়ার পর ১৯৯১ সালে বিএনপির রাজনীতিতে যোগ দেন তিনি।

হাইকোর্টে এমকে আনোয়ারের মানহানি মামলা স্থগিত

চলতি বছরের ৩ জুলাই বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য এমকে আনোয়ারের বিরুদ্ধে মানহানি মামলা ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে হাইকোর্ট। ওইদিন বিচারপতি মো. মিফতাহ উদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি এ এন এম বসির উল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এ মামলা কেন বাতিল করা হবে না, তা জানতে রুল জারি করে হাইকোর্ট।

এমকে আনোয়ারের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী সগীর হোসেন লিয়ন ও রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ একেএম মনিরুজ্জামান কবির।

উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ৫ মে হেফাজতে ইসলামের ঢাকা অবরোধে বায়তুল মোকাররম এলাকায় পবিত্র কোরান শরীফে আগুন দেওয়ার ঘটনা স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা দেবাশীষের নেতৃত্বে হয়েছে, এমকে আনোয়ার এমন বক্তব্য দিয়েছেন অভিযোগের প্রেক্ষিতে ঐ বছরের ৭ মে মামলা দায়ের করেন দেবাশীষ বিশ্বাস।

ঐ দিনই আদালতে এমকে আনোয়ারের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন। পরে তিনি হাইকোর্ট থেকে দুই সপ্তাহের অন্তর্বর্তী জামিন পান।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক