হামলাকারীরা চিহ্নিত, সরকারের লোকজন: ফখরুল

হামলাকারীরা চিহ্নিত, সরকারের লোকজন: ফখরুল

সরকারি দলের লোকজন ফেনীতে বিএনপি চেয়ারপারসনের গাড়ি বহরে এ সন্ত্রাসী হামলার ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেছেন, হামলাকারীরা চিহ্নিত। সরকার এ হামলার দায় এড়াতে পারে না। এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। কিন্তু উদোরপিন্ডি বুদোর ঘাড় চাপানোর অপচেষ্টা হিসেবে এ ঘটনাকে বিএনপির অন্তকোন্দলের বহিপ্রকাশ বলে অপপ্রচার করছে। আমরা এ ঘটনার নিন্দা জানাই।

ফেনীতে হামলার শিকার সাংবাদিকদের দেখতে এসে সকালে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় তিনি আহত সাংবাদিকদের খোঁজ খবর নেন। পরে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী আহত সাংবাদিকদের দেখতে আসেন।

এ সময় তিনি বলেন, আওয়ামী জন¯্রােত দেখে ভীত হয়ে গেছে। ক্ষমতা হারানোর ভয়ে তারা বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তাদের হাত থেকে বিরোধী দলের নেতা কর্মী, বিচারক, সাংবাদিক কেউ রেহাই পাচ্ছে না।

নতুন করে হামলার আশঙ্কা করছেন কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সরকারের বেপরোয়া আচরণ যেখানে পৌঁছেছে তাতে যে কোনো সময় যে কোন কিছু ঘটতে পারে।

রোহিঙ্গাদের ব্যাপারে তিনি বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার সরকার যেটি চাইছে বাংলাদেশ সরকার ও সে পথে হাঁটছে। বাংলাদেশ কে সরাসরি বলতে হবে রোহিঙ্গারা তোমাদের নাগরিক তাই তাদের তোমাদের দেশেই ফিরিয়ে নিতে হবে।

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার গাড়িবহরের হামলাকারীরা ছাত্রলীগ-যুবলীগের চিহ্নিত সন্ত্রাসী বলে অভিযোগ করেছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

এদিকে চট্টগ্রামে শনিবার রাত্রিযাপন শেষে রবিবার কক্সবাজারের উদ্দেশে যাত্রা করবেন খালেদা জিয়া। এরপর সোমবার রোহিঙ্গাদের দেখতে উখিয়ার বেশকিছু স্থান পরিদর্শন ও রোহিঙ্গাদের সহায়তা দেয়ার কথা রয়েছে।

এর আগে শনিবার সকাল ১০টা ৪০ মিনিটে রাজধানীর গুলশানের বাসভবন ‘ফিরোজা’ থেকে কক্সবাজারের উদ্দেশে রওনা হন খালেদা। এসময় তাকে স্বাগত জানাতে রাজধানীর কাচপুর ব্রীজ থেকে শুরু করে ফেনী পর্যন্ত অন্তত ২০টি স্পটে বিএনপির সর্বস্তরের নেতাকর্মীদের উপস্থিতি ছিল লক্ষণীয়। খালেদা জিয়াও গাড়ি থেকে দলের নেতাকর্মীদের হাত নাড়িয়ে শুভেচ্ছা জানান।

বিকেলে চৌদ্দগ্রাম পেরিয়ে ফেনী জেলার সীমানার শুরুতে মোহাম্মদ আলী বাজারে আসা মাত্র গাড়িবহর লক্ষ্য করে হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। খালেদা জিয়ার গাড়ি পেরিয়ে যাওয়ার পর একদল যুবক ওই হামলা চালায়

এতে ক্ষতিগ্রস্ত হয় গণমাধ্যমসহ বিএনপির নেতাকর্মীদের বহরে থাকা অন্তত ৩০টি গাড়ি। এতে আহত হয় অন্তত ১৫/১৬ জন। হামলায় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যালেন একাত্তর, ডিবিসি, চ্যানেল আই, যমুনা, একুশে টিভি, এটিএন নিউজ, এনটিভি ও বৈশাখী টেলিভিশনের গাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। শুধু তাই নয়, গণমাধ্যমকর্মী পরিচয় দেয়ার পরও কয়েকজন মারধরের শিকার হন। এছাড়া বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাদের গাড়িও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার গাড়িবহরে সর্বশেষ হামলা চালানো হয় শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে চট্টগ্রামের মীরসরাইয়ে। এসময় বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এনটিভির গাড়িতে ভাঙচুর চালানো হয়। নেতাকর্মীদের বহনকারী আরো একটি গাড়িতেও হামলা চালানো হয়।

এই কর্মসূচি সফলে সরকারের সহযোগিতা চেয়ে ফখরুল সকালে বলেছিলেন, ‘আমরা আশা করি, পথিমধ্যে সরকারের সব ধরনের সহযোগিতা পাব। পুলিশ মহাপরিদর্শক আমাদের আশ্বাস দিয়েছেন, তারা দেশনেত্রীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করবেন এবং তার সফর যাতে সুন্দরভাবে হয়, তাতে সহযোগিতা করবেন।’

বিএনপি মহাসচিব জানান, খালেদার এই সফরে ১০ হাজার রোহিঙ্গা পরিবারের মধ্যে ত্রাণ বিতরণের পরিকল্পনা রয়েছে তাদের।

রোহিঙ্গা সঙ্কট শুরুর পর সেপ্টেম্বরের মাঝামাঝি সময়ে ২২ ট্রাক ত্রাণ নিয়ে কক্সবাজারের যাওয়ার পথে বিএনপির কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলকে আটকে দেওয়া হয়।

উল্লেখ্য, মায়ানমারের সেনাবাহিনী অভিযানের ঘোষণা দিয়ে আগে থেকেই রাখাইনের রোহিঙ্গা গ্রামগুলো অবরুদ্ধ করে রাখে। এরই মধ্যে রোহিঙ্গা যোদ্ধারা অন্তত ২৫টি পুলিশ পোস্ট ও একটি সেনা ক্যাম্পে গত ২৪ আগস্ট মধ্যরাতের পরে প্রবেশের চেষ্টা করলে শুরু হয় সংঘর্ষ।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক