কেন বায়োগ্রাফি প্রত্যাখ্যান করলেন নওয়াজ?

কেন বায়োগ্রাফি প্রত্যাখ্যান করলেন নওয়াজ?

কিছুদিন আগে নওয়াজের একটা কথা সারা ফেলে দিয়েছিল নেট দুনিয়ায়।দুজন মহিলার সঙ্গে তাঁর ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক নিয়ে বায়োগ্রাফিতে নানা কথা লিখেছিলেন তিনি। তবে সবটাই করেছিলেন ওই মহিলাদের অনুমতি ছাড়াই।

এই ঘটনার পর তাঁর কো স্টার নিহারিকা (যিনি এক সময় নওয়াজের ঘনিষ্ঠ ছিলেন)নওয়াজের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ করেছিলেন। তাঁর পরই নওয়াজ টুইট করে ক্ষমা চায় ওই সকল মহিলাদের কাছে এবং তাঁর বায়োগ্রাফিটি প্রত্যাখ্যান করবেন বলেই জানিয়েছেন তিনি।

প্রসঙ্গত, কিছু দিন আগে তিনি কিছু কথা লিখেছিলেন তাঁর বায়গ্রাফিতে ‘প্রায় সব মেয়ের সঙ্গেই দেখা করতাম,সম্পর্ক হত,তারপর বিছানায় চলে যেতাম,তবে সেটা একেবারেই ভালবাসার সম্পর্ক নয়’- সকলে পড়ে হয়ত চমকে যাবেন। কিন্তু ঠিক এরকমই কথা তিনি জানিয়েছেন এবং তা লেখাও আছে তাঁর বায়োগ্রাফিতে ।তিনি একজন বড় মাপের অভিনেতা সেই বিষয়ে আলাদা করে কিছু বলার নেই। তবে তাঁর বায়োগ্রাফি তে যা লেখা আছে তা পরলে আপনার ধারনাই বদলে যাবে।

নওয়াজ জানিয়েছেন , “একদিন এক শ্যুটিং সেটে আমি আর আমার কো স্টার নীহারিকা সিং( অভিনেত্রী তথা প্রাক্তন মিস ইন্ডিয়া ) ডান্স সিকোয়েন্স নিয়ে ব্যস্ত ছিলাম, হটাত নীহারিকার একটা অসুবিধা হয় আর সে দৌড়ে মেকআপ ভ্যানে চলে যায়। পরিচালক জানায় ‘কাট’। আমি তাকে অনেকবার জিজ্ঞাসা করার পরও তাঁর কাছ থেকে কোন উত্তর পাইনা। তারপর আমি আর তাকে জিজ্ঞাসা করা বন্ধ করে দিই। একদিন তাকে আমার বাড়িতে ডাকি কিছু রান্না করে একসঙ্গে ডিনার করব বলে। সেদিন নীহারিকা এক অসাধারণ সিল্কের পোশাক পড়ে আসে আমার বাড়িতে। তারপর সে যথারীতি রান্না করে, একসঙ্গে খাওয়া-দাওয়া পর্ব মিটিয়ে গল্পে মজি। তাকে এতটাই অপূর্ব লাগছিল যে,আমি নিজেকে সামলাতে পারিনি। দুজনের ইচ্ছাতেই সম্পর্ক টা বিছানায় এগোয়।

এরপর বহুবার আমরা শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হই। তবে কোন ভালোবাসার সম্পর্ক ছিলোনা আমাদের। আমি অনেক মেয়ের সঙ্গেই শারীরিক সম্পর্কে ছিলাম তবে তাদেরও কখনও আমি ভালোবাসি বলিনি। তবে এই ঘটনার পর আমি নীহারিকার সঙ্গে আবারও যখন শারীরিক সম্পর্কে যেতে চাই সে জানায় অনেক হয়েছে এবার এখানে আমাদের থামা দরকার। আমি তাকে বহুবার সরি জানাই। তবে তাঁর কাছ থেকে রিপ্লাই মেলেনি। ব্যাস! এখানেই শেষ।

ঠিক এরকম বিস্ফোরক মন্তব্য উঠে আসে নওয়াজের কণ্ঠে। আর তা লেখাও আছে তাঁর বায়োগ্রাফিতে।

 

 

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট