ত্বকের শুষ্কতা রোধ করতে…

ত্বকের শুষ্কতা রোধ করতে…

অন্যান্য মৌসুমের তুলনায় শীত শুরুর আগে ত্বক অনেক বেশি শুষ্ক হয়ে ওঠে। পুরো শীতকাল এই শুষ্কতা থাকে। এসময় কারো কারো হাত-পা ফেটে যায়। ত্বক আর্দ্রতা হারিয়ে ফেলে। এজন্য ত্বকের বাড়তি যত্নের প্রয়োজন হয়।এসময় ত্বকের লাবণ্য ধরে রাখতে স্ক্রাব ব্যবহার করতে পারেন।

বাজারে বিভিন্ন ধরনের ভেষজ স্ক্রাব কিনতে পাওয়া যায়। আবার ঘরেও তৈরি করতে পারেন স্ক্রাব। এটি ত্বকের মরা কোষ তাজা করতে সাহায্য করে।

দুই টেবিল চামচ পাকা কলা, ব্লেন্ড করা আপেল, এক চামচ মধু মিশিয়ে মাস্কটা তৈরি করুন। তারপর দুই মিনিট ভালভাবে ম্যাসাজ করে এটি মুখে লাগাতে পারেন। শুকিয়ে গেলে হালকা গরম পানি দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এত ত্বকে সজীবতা ফিরে আসবে।

এছাড়া ত্বকের শুষ্কতা দূর করতে নিয়মিত অলিভ অয়েল অথবা গ্লিসারিন ব্যবহার করতে পারেন। একভাগ গ্লিসারিনের সংঙ্গে দুইভাগ পানি মিশিয়ে গ্লিসারিন একটি বোতলে করে রেখে দিন। পুরো শীতকাল এটা হাতে ও পায়ে ব্যবহার করুন। তাহলে হাত-পা ফাটা কমে যাবে।

এছাড়া বাজারে বিভিন্ন ধরনের ময়েশ্চারাইজার লোশন পাওয়া যায়। রাতে শোয়ার আগে পা ভাল করে ধুয়ে এটি লাগাতে পারেন। অথবা অলিভ ওয়েলের সঙ্গে সাধারণ কোল্ড ক্রিম অথবা লোশন মিশিয়ে লাগাতে পারেন পায়ে। এটি পায়ের শুষ্কতা যেমন কমাবে তেমনি পা ফাটা সারিয়ে তুলতে সাহায্য করবে।

প্রচুর পানি পান করতে হবে। মনে রাখবেন, শুষ্ক আবহাওয়ায় শরীর ও ত্বকের আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে পানি দারুণ কার্যকরী। পর্যাপ্ত পানি পান করলে ত্বকে সজীবতাও বজায় থাকবে।

শীতের শুরু থেকে সূর্যের তেজ কমতে থাকে। কখনো কখনো মেঘ কিংবা কুয়াশার আড়ালে এটি লুকিয়ে থাকে। তারপরও  সূর্য থেকে নির্গত অতি বেগুনি রশ্মি ত্বকের জন্য ক্ষতিকর। এজন্য গরমের দিনের মতো এ সময়টাতেও সানস্কিন লোশন ব্যবহার করতে হবে।

শীতে অনেক ধরনের শাকসবজি পাওয়া যায়। বিশেষ করে গাজর, শিম, ফুলকপি, লেবু, টমেটো, পালং শাক এগুলো শরীরের জন্য খুবই উপকারী। তাই ত্বকের শুষ্কতা রোধ করতে বেশি বেশি তাজা শাকসবজি ও ফলমূল খেতে হবে। সূত্র: স্টাইলক্রেজ

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট