ইতালিকে টাইব্রেকারে হারিয়ে সেমিতে জার্মানি

ইতালিকে টাইব্রেকারে হারিয়ে সেমিতে জার্মানি

শক্তিতে এগিয়েছিল জার্মানি। ইতিহাস ছিল ইতালির পক্ষে। ইউরো কাপের সবচেয়ে আলোচিত এ দুই দলের ম্যাচে শক্তিরই জয় হয়েছে। বিশ্বকাপ কিংবা ইউরো-কোনো বৈশ্বিক টুর্নামেন্টে ইতালির বিপক্ষে জয় না পাওয়ার আক্ষেপ ঘুঁচিয়ে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন জার্মানি উঠে গেছে ইউরোর সেমিফাইনালে। ফ্রান্স ও আইসল্যান্ডের মধ্যেকার শেষ কোয়ার্টার ফাইনালে বিজয়ীর সঙ্গে ফাইনালে ওঠার যুদ্ধ নামবে জার্মানি। গতকাল (শনিবার) রাতে অনুষ্ঠিত কোয়ার্টার ফাইনালে টাইব্রেকারের সাডেনডেথে ৬-৫ গোলে ইতালিকে হারিয়ে অনেক দিনের জমে থাকা প্রতিশোধ নিয়েছে জার্মানি। নির্ধারিত ও অতিরিক্ত সময়ের খেলা ১-১ গোলে শেষ হলে ম্যাচের ভাগ্য নির্ধারণ টাইব্রেকারে।

ফ্রান্সের বোর্দোয় ইতিহাস বদলানোর মিশন নিয়ে ইতালির বিপক্ষে মাঠে নামে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন জার্মানি। ম্যাচের শুরু থেকেই ইতালির রক্ষণ শিবিরে চাপ প্রয়োগ করে খেলতে থাকে মুলার-ওজিলরা। ২৭ মিনিটে মুলারের ক্রসে শোয়েইনস্টাইগারের হেড জালে জড়ালেও ফাউলের জন্য তা বাতিল করে দেওয়া হয়।

৪২মিনিটে মারিও গোমেজের হেড লক্ষ্য ভ্রষ্ট হলেও হতাশায় ডুবে জার্মানি শিবির। এর পরের মিনিটেই ডি বক্সে দুর্বল শট নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া করেন মুলার। দুই মিনিট পর সুযোগ হাতছাড়া করে ইতালিও। জাক্কেরিনি নিজে শট না নিয়ে স্তেফাও স্তুরারোকে বল বাড়ান; নয়ারকে পরাস্ত করতে পারেননি ইউভেন্তুসের এই মিডফিল্ডার। ফলে গোল শূন্য অবস্থায় বিরতিতে যায় দুই দল।

বিরতি থেকে ফিরে গোলের জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে দুই দল। ৫৪ মিনিটে গোমেজের কাছ থেকে বল পেয়ে গোল করার সুবর্ণ সুযোগ পেয়ে যান মুলার। প্রথমার্ধের মতো ভুল করেননি, বুলেট শটে জাল খুঁজে নিচ্ছিলেন তিনি। অসহায়ের মতো দাঁড়িয়ে বলের জালে যাওয়া দেখছিলেন জানলুইজি বুফ্ন। কিন্তু ছুটে এসে দারুণ স্লাইডে কর্নারের বিনিময়ে সে যাত্রা দলকে বাঁচান ফ্লোরেন্সি।

তবে ৬৫ মিনিটে এগিয়ে যায় জার্মানি। গোমেজের ডিফেন্স চেরা পাস ডি বক্সে খুঁজে পায় হেক্টরকে। তার শট ইতালির একজনের গায়ে লাগলে বল পেয়ে যান ওজিল, সুযোগ হাতছাড়া করেননি আর্সেনালের এই মিডফিল্ডার। চার মিনিট পর ব্যবধান বাড়ানোর সুযোগ হাতছাড়া করেন গোমেজ। অফ সাইড ফাঁদ ভেঙে বুক দিয়ে বল নিচে নামালেও সতর্ক বুফনকে ফাঁকি দিতে পারেননি। ম্যাচের ৭৭ মিনিটে সমতায় ফেরে ইতালি। ডি বক্সে বোয়াটেংয়ের হাতে বল লাগলে পেনাল্টি পায় ইতালি। সমতা আনেন বোনুচ্চি।

টাইব্রেকারে প্রথম ৫ শটে দুদলের তিনটি করে হয় ব্যর্থ। তারপর সাডেনডেথ। টাইব্রেকারে ইতালির গোল করেন লরেন্সো ইনসিনিয়ে ও আন্দ্রেয়া বারজাগলি। ব্যর্থ হন সিমোনে জাজা, গ্রাজিয়ানো পেল্লে ও লিওনার্দো বোনুচ্চি। জাজা নেমেছিলেন শুধু টাইব্রেকারের জন্যই। জার্মানির টাইব্রেকারে জালে বল পাঠান টনি ক্রুস ও ইউলিয়ান ড্রাক্সলার। ব্যর্থ হন টমাস মুলার, মেসুত ওজিল ও বাস্তিয়ান শোয়েইনস্টাইগার। শোয়েইনস্টাইগার গোল পেলে তখনই সেমি-ফাইনালে পৌঁছে যেত জার্মানি।

এরপর পরের তিন শটে গোল করেন ইতালির এমানুয়েল জাক্কেরিনি, মার্কো পারলো ও মাত্তিয়া দে শিলিও। কিন্তু মাত্তেও দারমেইনের শট ফিরিয়ে দেন নয়ার। আর টানা চার শটে গোল করেন মাটস হুমেলস, জশুয়া কিমিচ, জেরোম বোয়াটেং ও ইয়োনাস হেক্টর। হেক্টরের শট অল্পের জন্য ফেরাতে পারেননি জানলুইজি বুফ্ফন। বল তাকে ফাঁকি দিয়ে জালে জড়ালে উল্লাসে মাতে জার্মানরা।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট