প্রতিটি ইউনিয়নে অনলাইন স্কুল গড়ে তোলা হবে: পলক

প্রতিটি ইউনিয়নে অনলাইন স্কুল গড়ে তোলা হবে: পলক

তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক জানিয়েছেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়ন করতে হলে প্রযুক্তিনির্ভর শিক্ষা ব্যবস্থাকে আরও বৃহৎ আকারে ছড়িয়ে দিতে হবে। পাশাপাশি নারীদের তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর কর্মসংস্থানও একান্ত আবশ্যক। সে লক্ষে, সারাদেশে ৩০ হাজার তথ্যকল্যাণী ও প্রতিটি ইউনিয়নে একটি করে অনলাইন স্কুল গড়ে তোলা হবে।

শনিবার রাজধানীর আগারগাঁস্থ তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের সেমিনার হলে ‘তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে আইসিটি-নির্ভর উদ্যোক্তা সৃষ্টি ও শিক্ষা কার্যক্রম বর্ধিতকরণ’ শীর্ষক আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন।

তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগ আয়োজিত এ আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে পলক বলেন, ভবিষ্যৎ বাংলাদেশের যে স্বপ্ন আমরা দেখছি তার প্ল্যাটফর্ম হচ্ছে আইসিটি। আমরা ট্র্যাডিশনাল ইকোনমি থেকে ডিজিটাল ইকোনমিতে পরিবর্তন করতে চাই।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০১২ সালের মধ্যে ৬৪টি জেলায় ৩০ হাজার ইনফোলেডি (তথ্যকল্যাণী) তৈরি করতে পারব এবং এর মধ্যে দিয়ে আমাদের সামাজিক এবং অর্থনৈতিক বিপ্লব কার্যকর হবে।

জাগো ফাউন্ডেশন এবং ডিনেটকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের দেশের তরুণদের সম্পর্কে ধারণাকে পাল্টে দিয়েছে জাগো ফাউন্ডেশন। আর ডিনেট আমাদের দেশের নারীদের এগিয়ে নিয়ে যেতে করছে। ডিনেট’র ইনফো লেডি ও জাগো ফাউন্ডেশনের জাগো স্কুল মডেলগুলো অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

এ সময় জাগো ফাউন্ডেশনের অনলাইন স্কুলগুলোতে শেখ রাসেল কম্পিউটার ও ভাষা প্রশিক্ষণ ল্যাব স্থাপন করা হবে বলে জানান তিনি।

একই সঙ্গে বর্তমান মডেলের অনলাইন স্কুলের সংখ্যা বাড়ানো, প্রকল্প তৈরি করে দেশি বিদেশীদের অর্থায়নে নতুন বড় পরিসরের ডিজিটাল স্কুল তৈরি করা এবং দেশের বর্তমান প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর ভবন ব্যবহার করে ডিজিটাল ক্লাস শুরু করা- এ তিন পরিকল্পনার একটি বাস্তবায়ন করার কথাও জানান তিনি।

তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের মহাপরিচালক বনমালী ভৌমিকের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও বক্তব্য রাখেন ডিনেটের প্রধান নির্বাহী ড. অনন্য রায়হান ও জাগো ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা করভি রাকসান্দ। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের নির্বাহী পরিচালক এস এম আশরাফুল ইসলাম, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক অথরিটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম এনডিসি, তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মো. হারুনুর রশিদ, সুকান্ত কুমার সাহা, পার্থ প্রতিম দেব, কন্ট্রোলার অব সার্টিফায়িং অথরিটির কন্ট্রোলার আবুল মনসুর মোহাম্মদ সারফ উদ্দিনসহ আইসিটি ডিভিশন, ডিনেট এবং জাগো ফাউন্ডেশনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক