হিমায়িত খাদ্য ও মৎস্য রপ্তানিতে আয় ৫৩ কোটি ডলার

হিমায়িত খাদ্য ও মৎস্য রপ্তানিতে আয় ৫৩ কোটি ডলার

সদ্য সমাপ্ত ২০১৫-১৬ অর্থবছরে হিমায়িত খাদ্য ও মৎস্য রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৫৩ কোটি ৫৭ লাখ ৭০ হাজার মার্কিন ডলার। এর মধ্যে শুধু চিংড়ি এবং কাঁকড়া রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৪৭ কোটি ২৩ লাখ ৭০ হাজার মার্কিন ডলার।

বাংলাদেশ রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) জুলাই মাসে প্রকাশিত হালনাগাদ প্রতিবেদন থেকে এই তথ্য জানা গেছে। এতে আরও জানানো হয়েছে, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে হিমায়িত খাদ্য ও মৎস্য জাতীয় পণ্য রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৫৬ কোটি ৮০ লাখ ৩০ হাজার মার্কিন ডলার। সদ্য সমাপ্ত ২০১৫-১৬ অর্থবছরে এই খাতের রপ্তানি লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ৫৭ কোটি ৮০ লাখ মার্কিন ডলার। এর বিপরীতে আয় হয়েছে ৫৩ কোটি ৫৭ লাখ ৭০ হাজার মার্কিন ডলার। যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৭ দশমিক ৩১ শতাংশ কম। একইসঙ্গে গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরের তুলনায় হিমায়িত খাদ্য ও মৎস্য রপ্তানি আয় ৫ দশমিক ৬৮ শতাংশ কমেছে।

সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে চিংড়ি ও কাঁকড়া রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৫১ কোটি ৫০ লাখ মার্কিন ডলার। তবে এই সময়ে আয় হয়েছে ৪৭ কোটি ২৩ লাখ ৭০ হাজার মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৮ দশমিক ২৮ শতাংশ কম। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে চিংড়ি ও কাঁকড়া রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৫০ কোটি ৯৭ লাখ ২০ হাজার মার্কিন ডলার। অর্থাৎ বছরের ব্যবধানে চিংড়ি ও কাঁকড়া রপ্তানি আয় ৭ দশমিক ৩৩ শতাংশ কমেছে।

২০১৫-১৬ অর্থবছরে জীবিত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৯১ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার; যা এই সময়ের লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২০৪ দশমিক ৬৭ শতাংশ বেশি। আলোচ্য সময়ে এই খাতে বৈদেশিক মুদ্রা আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৩০ লাখ মার্কিন ডলার। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে জীবিত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ২৮ লাখ ১০ হাজার মার্কিন ডলার। অর্থাৎ আগের অর্থবছরের তুলনায় সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে জীবিত মাছ রপ্তানি আয় ২২৫ দশমিক ২৭ শতাশ বেড়েছে।

জীবিত মাছ রপ্তানিতে আয় বাড়লেও বছরের ব্যবধানে হিমায়িত মাছ রপ্তানি আয় ৪ দশমিক ১০ শতাংশ কমেছে। ২০১৪-১৫ অর্থবছরে এই খাতের রপ্তানি আয় ছিল ৪ কোটি ৯০ লাখ ৮০ হাজার মার্কিন ডলার। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে হিমায়িত মাছ রপ্তানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছিল ৫ কোটি মার্কিন ডলার। সদ্য সমাপ্ত বছরে এই খাতে আয় হয়েছে ৪ কোটি ৭০ লাখ ৭০ হাজার মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৫ দশমিক ৮৬ শতাংশ কম।

আলোচ্য সময়ে অন্যান্য হিমায়িত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছে ৭১ লাখ ৯০ হাজার মার্কিন ডলার; যা লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ২৮ দশমিক ১০ শতাংশ কম। গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরে অন্যান্য হিমায়িত মাছ রপ্তানিতে আয় হয়েছিল ৬৪ লাখ ২০ মার্কিন ডলার। অর্থাৎ বছরের ব্যবধানে এই খাতের রপ্তানি আয় ১১ দশমিক ৯৯ শতাংশ বেড়েছে।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক