জঙ্গি হামলার গুজব ছড়ানো ফৌজদারি অপরাধ

জঙ্গি হামলার গুজব ছড়ানো ফৌজদারি অপরাধ

ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার জানিয়েছেন, জঙ্গি হামলার গুজব ছড়ানো ফৌজদারি অপরাধ। যারা এ ধরণের গুজব ছড়াচ্ছে তাদেরকে ফৌজদারি আইনের আওতায় আনা হবে।

বৃহস্পতিবার সকালে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপে একথা জানান তিনি। কমিশনার জানান, যেসব ওয়েবসাইট থেকে গুজব ছড়ানো হচ্ছে সেগুলোকে চিহ্নিত করেছেন তারা।

রাজধানীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা, শপিংমল কিংবা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জঙ্গি হামলা হতে পারে গত কয়েকদিন ধরেই বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এমন তথ্য আসছে। এসব তথ্যকে গুজব দাবি করে ডিএমপি কমিশনার বলেন, শুধুমাত্র আতঙ্ক ছড়ানোর জন্য একটি মহল উদ্দেশ্যমূলকভাবে এসব ছড়াচ্ছে। এগুলোকে ফৌজদারি অপরাধ উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, এদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে।

ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া জানান, ‘গুজব রটিয়ে অমুক তারিখে হামলা হবে, অমুক জায়গায় হামলা হবে, এতো ঘণ্টার মধ্যে হামলা হবে- এগুলো জনমনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করছে, আতঙ্ক সৃষ্টি করছে। তাদের উদ্দেশ্য বাংলাদেশকে অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করা। এই ধরণের গুজব ছড়ানো ফৌজদারি অপরাধ। আমরা তাদেরকে খুঁজে বের করব এবং বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করাব।’

গুলশান হামলায় যে ছয়জন নিহত হয়েছে তারাই সরাসরি অংশ নিয়েছিলো। তবে বাইরে থেকে তাদের সহায়তা করেছে, মদদ দিয়েছে, অর্থের যোগান দিয়েছে যারা তাদের শনাক্ত করা হচ্ছে।

আছাদুজ্জামান মিয়া জানান, ‘যারা এই রিক্রুটমেন্টের সাথে জড়িত, প্রশিক্ষণের সাথে জড়িত, অর্থ দেয়ার সাথে জড়িত তাদেরকে খুঁজে বের করছি। মামলা তদন্তাধীন থাকলে মামলার কিছু তথ্য আছে যেগুলো প্রকাশ করলে পরবর্তী তথ্যগুলো পাওয়া যায় না।’

ঢাকা মহানগর পুলিশ প্রধান আরো বলেন, গুলশানের কূটনৈতিকপাড়াকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে পুরো রাজধানীর নিরাপত্তা জোরদার করেছেন তারা।

কোনো গুজবে আতঙ্কিত না হয়ে অস্বাভাবিক কিছু নজরে এলে পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহায়তার জন্যও নগরবাসীর প্রতি অনুরোধ জানান ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক