মুস্তাফিজের কাউন্টি অভিষেক- এলেন, খেললেন, জয় করলেন!

মুস্তাফিজের কাউন্টি অভিষেক- এলেন, খেললেন, জয় করলেন!

মুস্তাফিজুর রহমানের কাউন্টি অভিষেকটা যেন “এলেন, খেললেন, জয় করলেন” এর মত।

আইপিএল-এর সেরা উদীয়মান খেলোয়াড় হবার পর এবার কাউন্টি মাতানো শুরু করেছেন মুস্তাফিজুর রহমান। সাসেক্সের হয়ে কাউন্টি ক্রিকেটে অভিষেক ম্যাচে ৪ ওভার বোলিং করে ২৩ রান দিয়ে ৪ উইকেট তুলে নিয়েছেন তিনি। একে একে শিকার করেছেন রবি বোপার, রায়ান টেন ডেশকাটে, জেমস ফস্টার ও ক্যালাম টেইলরের উইকেট। এদিন দুর্দান্ত একটি ক্যাচও লুফেছেন ফিজ। দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে মুস্তাফিজুর ম্যাচ শেষে পেয়েছেন ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার।

২১ শে জুলাই বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২টায় শুরু হওয়া চেমসফোর্ডের কাউন্টি মাঠের ম্যাচটিতে মুস্ত‌‌‌াফিজের দল সাসেক্সের দেওয়া ২০১ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৭৬ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হয় এসেক্স। ফলে ২৪ রানের জয় তুলে নেয় সাসেক্স।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে ক্রিস জর্ডানের ব্যাটিং নৈপুণ্যে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট খুইয়ে ২০০ রান করে সাসেক্স। জবাবে ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারানো এসেক্সের ইনিংস থামে ১৭৬ রানে।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে দলীয় ১১ রানের মাথায় নিক ব্রাউনির (১) উইকেট হারায় এসেক্স। টিমাল মিলসের বলে অসাধারণ দক্ষতায় ব্রাউনিকে তালুবন্দী করেন মোস্তাফিজ। দুর্দান্ত এই ক্যাচ দিয়েই কাউন্টিতে আলো কাড়ার শুরু বাংলাদেশের কাটার মাস্টারের।

আইপিএলের মতো ষষ্ঠ ওভারে মোস্তাফিজের হাতে বল তুলে দিলেন সাসেক্স অধিনায়ক লুক রাইট! ব্যক্তিগত প্রথম ওভারে মাত্র ৪ রান খরচ করলেন ফিজ। বাঁহাতি এই পেসারের সৃজিত চাপেই পরের ওভারে দ্রুত রান বাড়াতে গিয়ে আর্চারের শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন টম ওয়েস্টলি (২৩)। আর ৩৬ রান করা ডন লরেন্সকে ফেরালেন উইল বেয়ার।

দলের প্রয়োজনে ১৬তম ওভারে দ্বিতীয় দফায় বোলিং করতে এসে প্রথম বলে এক রান দিলেন। পরের বলে দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে এসেক্সের অধিনায়ক বরি বোপারাকে (৩২) সাসেক্সের অধিনায়ক লুক রাইটের তালুবন্দী করান কাটার মাস্টার। এই ওভারে খরচ করলেন মোটে ২ রান।

১৮তম ওভারের শুরুটা ভালো হয়নি ফিজের। প্রথম বলেই খেয়ে যান টেন জেসকাটের ছক্কা। কিন্তু ওভারের তৃতীয় বলেই জেমস ফোস্টারকে (৫) সরাসরি বোল্ড করেন। এই ওভারের শেষ বল মোকাবিলা করতে আসেন কলাম টেলর। মুস্তাফিজের স্লোয়ার বুঝতে না পেরে তিনিও বোল্ডআউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন রানের খাতা না খুলতেই। এই ওভারে মুস্তাফিজ দিয়েছেন ৭ রান।

ব্যক্তিগত ও দলের শেষ ওভারে (২০তম) ১০ ব্যয় করে টেন জেসকাটের উইকেটটি ঝুলিতে জমা করেছেন।  সাসেক্সের পক্ষে ১টি করে উইকেট নিয়েছেন আর্চার, টিমাল মিলস ও উইল বেয়ার।

এর আগে সাসেক্সের হয়ে সর্বোচ্চ ৪৫ রানের ইনিংস খেলেন ক্রিস জর্ডান। ২১ বলে একটি চার ও পাঁচটি ছক্কায় অপরাজিত এই ইনিংস দলকে উপহার দেন তিনি। ফিলিপ সল্ট করেন ৩৩ রান। অধিনায়ক লুক রাইটের ব্যাট থেকে আসে ৩২ রান। আর ঝড়ের আভাস দেয়া রস টেলর ২৪ রানের বেশি করতে পারেননি। এসেক্সের পক্ষে সর্বোচ্চ ২টি উইকেট নেন রবি বোপারা। একটি করে উইকেট নিয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় নেপিয়ার, কুইন ও লরেন্সকে।

মোস্তাফিজের কাউন্টি ক্যারিয়ারে এ যেন স্বপ্নিল এক অভিষেক।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক