জঙ্গি প্রতিরোধে মাঠ পর্যায়ে ধর্মের প্রকৃত শিক্ষা ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান

জঙ্গি প্রতিরোধে মাঠ পর্যায়ে ধর্মের প্রকৃত শিক্ষা ছড়িয়ে দেওয়ার আহ্বান

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জঙ্গি প্রতিরোধে মাঠ পর্যায়ে ধর্মের প্রকৃত শিক্ষা ছড়িয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। শনিবার সকালে জাতীয় ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে পুরস্কারপ্রাপ্তদের মধ্যে পদক ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এ নির্দেশ দেন ।

প্রধানমন্ত্রী জানান, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাজে উৎসাহ আনতে দেশের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো জনপ্রশাসন পদক দেওয়া হলো।

তিনি জানান, যে কোন মূল্যে জঙ্গি, সন্ত্রাসবাদ প্রতিরোধ করা হবে। এজন্য মাঠ পর্যায়ে ধর্মের প্রকৃত শিক্ষা ছড়িয়ে দিতে হবে। এ সময় জনপ্রশাসনের কর্মকর্তাদের দেশের কথা ভেবে কাজ করার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

শেখ হাসিনা জানান, জনপ্রশাসনে বিশেষ অবদানের জন্য এ বছর ৩০ জনকে পদক দেওয়া হয়েছে। এ বছর প্রশাসন (অফিস) থেকে ১৩ জন ও মাঠ পর্যায়ের ১৭ জনকে পুরস্কার প্রদান করা হয়েছে।

দেশের উন্নয়ন প্রক্রিয়া তরান্বিত করতে প্রজাতন্ত্রের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী জানান, ”শুধু চাকরির স্বার্থে চাকরি করবেন না। মনে রাখবেন- জনগণের সেবা করাই আমাদের প্রকৃত দায়িত্ব। কারণ বেতন-ভাতা যা কিছু আসে, এই গরিব কৃষকের শ্রম থেকেই।”

এর আগে গত বৃহস্পতিবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক জাতীয় ও জেলা পর্যায়ে পদকপ্রাপ্তদের নাম ঘোষণা করেন।

জাতীয় পর্যায়ে সাধারণ ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত শ্রেণিতে বিসিএস (প্রশাসন) একাডেমির ড. রহিমা খাতুন পুরস্কার গ্রহণ করেন।

দলগত শ্রেণিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অ্যাকসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের পরিচালক (দলনেতা) মো. মোস্তাফিজুর রহমান, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের উপসচিব জাহিদ হোসেন পনির, বিসিএস (প্রশাসন) একাডেমির সহকারী পরিচালক জি এম সরফরাজ, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব তন্ময় কুমার মজুমদার ও যশোরের সহকারী প্রোগ্রামার মো. মোতাহার হোসেন পুরস্কার গ্রহণ করেন।

সাধারণ ক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক শ্রেণিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের গভর্ন্যান্স ইনোভেশন ইউনিট জনপ্রশাসন পুরস্কারের জন্য নির্বাচিত হয়। অনুষ্ঠানে মহাপরিচালক আব্দুল হালিম ওই ইউনিটের পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করেন।

কারিগরি ক্ষেত্রে ব্যক্তিগত শ্রেণিতে সিরাজগঞ্জের চৌহালী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. শাহাদাত হোসেন সিদ্দিকী ও দলগত শ্রেণিতে নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক (দলনেতা) মো. আনিছুর রহমান মিঞা, নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) বেগম শাহীন আরা বেগম, সহকারী কমিশনার বেগম জয়া মারীয়া পেরেরা ও বেগম ফারহানা আফসানা চৌধুরী পুরস্কার গ্রহণ করেন।

কারিগরি ক্ষেত্রে প্রাতিষ্ঠানিক শ্রেণিতে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এটুআই প্রোগ্রাম। অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের মহাপরিচালক কবির বিন আনোয়ার পুরস্কার গ্রহণ করেন। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব কামাল আব্দুল নাসের চৌধুরী পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন।

পুরস্কার হিসেবে জাতীয় পর্যায়ে ১৮ ক্যারেট মানের এক ভরি ওজনের স্বর্ণপদক, ক্রেস্ট, সম্মাননাপত্র (সনদ) ও জনপ্রতি সর্বোচ্চ ১ লাখ টাকা এবং দলগত অবদানের ক্ষেত্রে স্বর্ণপদক, সম্মাননাপত্রে পাশাপাশি সর্বোচ্চ ৫ লাখ টাকা দেওয়া হয়। অন্যদিকে জেলা পর্যায়ে ব্যক্তিগত অবদানের ক্ষেত্রে ৫০ হাজার টাকা ও সম্মাননাপত্র এবং দলগত অবদানের জন্য সম্মননা ও সর্বোচ্চ ১ লাখ টাকা পুরস্কার হিসেবে দেওয়া হয়।

অনুষ্ঠানে জনপ্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, প্রতিমন্ত্রী ইসমাত আরা সাদেক, জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সর্ম্পকিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি এইচ এন আশিকুর রহমানসহ সরকারি ও বিরোধী দলের সংসদ সদস্যসহ বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত রয়েছেন।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক