এশিয়া বাইরে ভারতীয় ক্রিকেট দলের সবথেকে বড় জয়

এশিয়া বাইরে ভারতীয় ক্রিকেট দলের সবথেকে বড় জয়

মার্কশিটে একেবারে একশোয় একশো বলতে যা বোঝায়, ওয়েস্ট ইন্ডিজ়ের মাটিতে সেটাই করে দেখালেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। প্রথম ইনিংসে শতরান করার পাশাপাশি, বল হাতেই সাত উইকেট তুলে নিলেন তিনি। বলা যায়, তাঁর আনুকুল্যেই এক ইনিংস হাতে রেখে ৯২ রানে জয় পেল ভারতীয় দল। পরিসংখ্যান বলছে, এটাই নাকি এশিয়া মহাদেশের বাইরে ভারতীয় ক্রিকেট দলের সবথেকে বড় জয়।

স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস স্টেডিয়ামে প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ৫৬৬ রানে ইনিংস ডিক্লেয়ার করেন ভারতীয় অধিনায়ক বিরাট কোহলি। অধিনায়কের ডাবল সেঞ্চুরির পাশাপাশি, অশ্বিন ১১৩ রানের একটি অনবদ্য ইনিংস উপহার দেন। এরপরই বল হাতে নিজেদের ম্যাজিক দেখাতে শুরু করেন ভারতীয় বোলাররা। শুরুয়াত ঝটকা দেন মহম্মদ সামি। তিনি একাই প্রথম চারটে উইকেট তুলে নেন। এতেই শিরদাঁড়া ভেঙে যায় ক্যারিবিয়ানদের। এরপর মঞ্চে পা রাখেন উমেশ যাদব। তিনিও চারটি উইকেট নিজের ঝুলিতে পুরে নেন। আর বাকি দুটো তুলে নেন অমিত মিশ্র। ফলশ্রুতি হিসাবে ২৪৩ রানেই গুটিয়ে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ় দল।

সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ়কে ফলো অন করানোর। সেইমতো ফের ব্যাট হাতে নামতে বাধ্য হয় ক্যারিবিয়ানরা। এরপর আর ভারতীয় বোলারদের বেশি কিছু করতে হয়নি। দলকে জেতানোর দায়িত্ব একাই নিজের কাঁধে তুলে নেন অশ্বিন। ২৫ ওভার বল করে ৮৩ রানের বিনিময়ে সাত উইকেট তুলে নেন। বাকি তিনটে উইকেটের মধ্যে একটি করে ইশান্ত শর্মা, উমেশ যাদব এবং অমিত মিশ্র তুলে নেন। ২৩১ রানে শেষ হয় ক্যারিবিয়ানদের দ্বিতায় ইনিংস।

চার ম্যাচের সিরিজ় ১-০ এগিয়ে গেলো ভারতীয় দল। ম্যাচের সেরা নির্বাচইত হন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। তিনি জানালেন, “প্রথম ইনিংসে দলের মিডিয়াম পেসাররা যথেষ্ট ভালো বল করেছে। আমি প্রথম ইনিংসে নিজের ছন্দ খুঁজে পাচ্ছিলাম না। কারণ আমি লম্বা স্পেল পাচ্ছিলাম না। তবে মধ্যাহ্নভোজের পরে সেটা ফিরে পেয়েছিলাম। আমি রাতে অনিল ভভাইয়ের সঙ্গে এই বিষয়ে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা করি এবং পরেরদিন সকালে সেইমতো অনুশীলনও করি। আর একবার ছন্দটা খুঁজে পেতেই, বাকি কাজটাও সহজ হয়ে গিয়েছিল।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট