নারায়ণগঞ্জে শিশু শ্রমিক হত্যা: কারখানার কর্মকর্তা আটক

নারায়ণগঞ্জে শিশু শ্রমিক হত্যা: কারখানার কর্মকর্তা আটক

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার যাত্রমুড়া এলাকায় ‘জোবায়দা টেক্সটাইল’ মিলে সাগর বর্মণ (১০) নামে এক শিশু শ্রমিকের পায়ুপথে বাতাস ঢুকিয়ে হত্যার অভিযোগ চারজনের নাম উল্লেখ করে ১০ জনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার কয়রা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সোমবার সকালে নিহত শিশুর বাবা রতন বর্মণ রূপগঞ্জ থানায় এ মামলা করেন। নাম উল্লেখ করা ওই চারজন হলেন স্পিনিং মিলের জুনিয়র কর্মকর্তা নাজমুল হুদা, হারুন রশিদ, রাশিদুল ইসলাম ও আজাহার। এঁদের মধ্যে নাজমুল হুদা গতকালই গ্রেপ্তার হয়েছেন। অন্যরা পলাতক।

রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেন জানান, জোবায়দা স্পিনিং মিলের ২০ ভাগ শিশুশ্রমিক। গতকাল রোববার নির্যাতনের শিকার নিহত সাগরের বাবা রতন বর্মণ মামলায় যে চারজনের নাম উল্লেখ করেছিলেন, তাঁদের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাতপরিচয় বেশ কয়েকজনের বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করা হয়।

এর আগে, রবিবার রাতে রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেন জানান, ঘটনায় নাজমুল হুদা নামে একজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

রোববার দুপুরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শিশুটি মারা গেছে। ঘটনার পর পর হত্যাকারীরা কারখানা থেকে পালিয়ে যায়।

নিহত সাগর বর্মণ জোবায়দা টেক্সটাইল মিল কারখানার শ্রমিক রতন চন্দ্র বর্মণের ছেলে বলে পুলিশ জানিয়েছে। রতন চন্দ্র বর্মণ ও তার স্ত্রীও উক্ত কারখানায় কাজ করে। ৩ হাজার ১০০ টাকা মাসিক বেতনে ৭ মাস আগে সাগর এখানে কাজে যোগ দেয়। ৩ ভাইয়ের মধ্যে সবার ছোট সে। তাদের গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনা জেলায়।

সম্পর্কিত সংবাদ
নিজস্ব প্রতিবেদক