আবাহনী ডার্বিতে কেউ জেতেনি !

আবাহনী ডার্বিতে কেউ জেতেনি !

দেশের ঘরোয়া ফুটবলের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ আসর বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) নবম আসরের দ্বিতীয় দিনে দেখা মিলেছিল ঐতিহ্যবাহী দুই দলের ডার্বির। অপেক্ষা ছিল রোমাঞ্চকর এক মহারণের। কিন্তু এদিন সন্ধ্যায় আবাহনী ডার্বিতে লড়াই জমে উঠলেও জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারেনি ঢাকা ও চট্টগ্রাম আবাহনীর কেউই। দ্বৈরথটি শেষ পর্যন্ত ১-১ ব্যবধানে ড্র হয়েছে।

চট্টগ্রামের এমএ আজিজ স্টেডিয়ামে দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে সোমবার আক্রমণ-পাল্টা আক্রমণের পসরা জমে উঠেছিল। ম্যাচের ৮ মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো ঢাকা আবাহনী। কিন্তু ডি-বক্সের ঠিক বাইরে পাওয়া ফ্রি-কিক থেকে গোল আদায় করতে পারেনি দলটি। পরের মিনিটে চট্টগ্রাম আবাহনীর সোহেল রানা বক্সের মধ্যে শট নেওয়ার সুযোগ পেয়েও ক্রসবারের অনেকটা ওপর দিয়ে মারেন।

বন্দরনগরীর দলটি এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ হাতছাড়া করে ১১ মিনিটেও। এবার বক্সের সামান্য বাইরে থেকে নেওয়া ফ্রি-কিক ক্রসবারের ওপর দিয়ে মারেন অধিনায়ক মামুনুল ইসলাম।

ম্যাচের ৩৫ মিনিটে আরেকটি সুযোগ হাতছাড়া হতে দেয়নি ঢাকা আবাহনী। এসময় মামুন মিয়ার বাড়ানো বলে মাথা ছুঁইয়ে জাল খুঁজে নেন সানডে চিজোবা। পিছিয়ে পড়ে গোল শোধে মরিয়া হয়ে ওঠে স্বাধীনতা কাপের চ্যাম্পিয়ন চট্টগ্রাম আবাহনী। তবে প্রথমার্ধে আর কোনো গোলের দেখা পায়নি দুদলই।

মধ্যবিরতির পর বেশ জোরালো আক্রমণই চালাতে থাকে চট্টগ্রাম আবাহনী। ঢাকা আবাহনীর রক্ষণে চাপ তৈরি করতে থাকে লাগাতার। ম্যাচের ৭৭ মিনিটে ফলও আসে। মামুনুলের কর্নার শহীদুল আলম সোহেল ফিস্ট করে ফেরালেও পুরোপুরি বিপদমুক্ত করতে পারেননি। জটলার মধ্যে থেকে বল পেয়ে ফিরতি শটে অনেকটা শুয়ে পড়ে ভলি করে জাল খুঁজে নিয়ে সমতা ফেরান বদলি খেলোয়াড় রুবেল মিয়া।

সমতায় ফিরে দুদলই কয়েকটি পাল্টা চেষ্টা চালিয়েছিল। কিন্তু শেষপর্যন্ত আর কেউই গোলের দেখা পায়নি। এতে পয়েন্ট ভাগাভাগি করেই মাঠ ছাড়তে হয় দল দুটিকে।

অপরদিকে দিনের প্রথম ম্যাচে, মোহামেডান স্পোটিং ক্লাবের শুরুটাও ভালো হয়নি। লিগের প্রথম ম্যাচেই ঢাকার ঐতিহ্যবাদী এই দলকে আটকে দিয়েছে রহমতগঞ্জ মুসলিম ফ্রেন্ডস সোসাইটির। সোমবার দিনের প্রথম ম্যাচটি ১-১ গোলে ড্র হয়েছে। মোহামেডানের হয়ে ইসমাইল বাঙ্গুরা ও রহমতগঞ্জের হয়ে সিয়ো জুনাপিয়ো গোল করেছেন।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট