আপনি তেল উৎপাদনকারীদের ফাঁদে পড়েছেন: ট্রাম্পকে ইরান

আপনি তেল উৎপাদনকারীদের ফাঁদে পড়েছেন: ট্রাম্পকে ইরান

কিছু সুনির্দিষ্ট দেশ ইরানের তেলের ঘাটতি পূরণ করে দেবে বলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প যে আশা করেছেন তাকে ‘ভুল’ উল্লেখ করে তেহরান বলেছে, আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ওইসব দেশের পাতানো ফাঁদে পা দিয়েছেন।

তেল উৎপাদনকারী দেশগুলোর সংস্থা- ওপেকে নিযুক্ত ইরানের প্রতিনিধি হোসেইন কাজেমপুর নিউ ইয়র্ক-ভিত্তিক বার্তা সংস্থা ব্লুমবার্গকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে এ মন্তব্য করেছেন। তিনি বলেছেন, ইরানের তেল বিক্রির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের সিদ্ধান্ত আমেরিকার জন্য হিতে বিপরীত হতে পারে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সম্প্রতি ইরানের পরমাণু সমঝোতা থেকে আমেরিকাকে বের করে নিয়ে ঘোষণা করেছেন, আগামী নভেম্বর নাগাদ তেহরানের ওপর আরোপিত সব নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করা হবে। তিনি আন্তর্জাতিক বাজারে ইরানের তেল বিক্রি শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা হবে বলেও হুমকি দিয়েছেন। ইরানের তেলের সম্ভাব্য ঘাটতি রোধ করতে ট্রাম্প সৌদি আরবসহ আরো কিছু দেশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

এ সম্পর্কে কাজেমপুর আরো বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে ইরানের তেল সরবরাহ বন্ধ করে দেয়া হলে শেষ পর্যন্ত তাতে বিশ্ব অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্ত হবে। ইরানের তেলের ঘাটতি পূরণ করার সামর্থ্য অবশিষ্ট তেল উৎপাদনকারী দেশগুলোর নেই বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

কাজেমপুর বলেন, “সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও রাশিয়া দৈনিক ইরানের আড়াই লাখ ব্যারেল তেলের ঘাটতি পূরণ করবে বলে আমেরিকা আশা করছে। কিন্তু এটি একটি ‘ভুল হিসাব’। মিস্টার ট্রাম্প: আপনি তাদের পাতানো ফাঁদে পড়েছেন এবং এর ফলে তেলের দাম ব্যাপকভাবে বেড়ে যাবে।”

এদিকে বার্তা সংস্থা রয়টার্স বিশেষজ্ঞদের মতামত উল্লেখ করে বলেছে, সৌদি আরবের পক্ষে দৈনিক আড়াই লাখ ব্যারেল তেলের ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব নয়। যদি রিয়াদ সে সিদ্ধান্ত নিয়ে অতিরিক্ত তেল উত্তোলন শুরু করে তাহলেও দেশটি দীর্ঘ মেয়াদে এ কাজ অব্যাহত রাখতে পারবে না।

সম্পর্কিত সংবাদ
ডেস্ক রিপোর্ট